জয়পুরহাটে স্বাধীনতা দিবস উদযাপনে দু’দিনব্যাপী কর্মসূচি গ্রহণ

4847

জয়পুরহাট, ১৯ মার্চ, ২০১৯ (বাসস) : ২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস উদযাপন উপলক্ষে ২৫ ও ২৬ মার্চ দু’দিনব্যাপী ব্যাপক কর্মসূচি গ্রহণ করেছে স্থানীয় জেলা প্রশাসন।
১৯৭১ সালে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের আহবানে সাড়া দিয়ে অকুতোভয় এদেশের বাঙালি যুব, ছাত্র-জনতা মহান মুক্তিযুদ্ধে ঝাঁপিয়ে পড়ে। দীর্ঘ নয় মাস রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে ত্রিশ লক্ষ শহীদের আত্মত্যাগ এবং দুই লক্ষ মা-বোনের সম্ভ্রমের বিনিময়ে অর্জিত হয় মহান স্বাধীনতা।
যথাযোগ্য মর্যাদায় ৪৯তম মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালন উপলক্ষে সম্প্রতি অনুষ্ঠিত প্রস্তুতিমূলক সভায় সভাপতিত্ব করেন জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ জাকির হোসেন। ২৫ মার্চ গণহত্যা দিবস উদযাপনে জেলার হাজারো শহীদের বধ্যভূমি পাগলা দেওয়ান ও কড়ই কাদিরপুরে সন্ধ্যায় মোমবাতি প্রজ্জলন করা হবে। গণহত্যার উপর দুর্লভ আলোকচিত্র, একাত্তরের গণহত্যা ও সেই রাতের কথা বলতে এসেছি শীর্ষক প্রদর্শনীর আয়োজন করা হবে।
২৬ মার্চ মহান স্বাধীনতা ও জাতীয় দিবস পালন উপলক্ষে ৩১বার তোপধ্বনির মাধ্যমে দিবসের সূচনা ও সকাল ৬টা ২ মিনিটে শহীদ ডা. আবুল কাশেম ময়দানের স্মৃতিসৌধে জেলা প্রশাসন, পুলিশ প্রশাসনসহ বিভিন্ন রাজনৈতিক, সামাজিক-সাংস্কৃতিক সংগঠনের পক্ষ থেকে পুষ্পস্তবক অর্পণ করা হবে। সরকারি-বেসরকারি ভবনে জাতীয় পতাকা উত্তেলন এবং স্টেডিয়ামে আনুষ্ঠানিকভাবে জাতীয় পতাকা উত্তোলন, জয়পুরহাট স্টেডিয়ামে পুলিশ, আনসার, বিএনসিসি, স্কাউট, গার্লস ইন স্কাউট, স্কুল-কলেজের শিক্ষার্থীদের সমন্বয়ে ও শিশু-কিশোরদের মনোজ্ঞ কুচকাওয়াজ এবং শরীরর্চ্চা প্রদর্শন করা হবে। স্বেচ্ছায় রক্তদান কর্মসূচি, হাসপাতাল, জেলখানা ও এতিম খানায় উন্নতমানের খাবার পরিবেশন, প্রীতি ফুটবল ম্যাচের আয়োজন করা হবে।
বীর মুক্তিযোদ্ধা ও যুদ্ধাহত মুক্তিযোদ্ধাদের ফুলেল শুভেচ্ছা জানানো ও শহীদ ডা. আবুল কাশেম ময়দানে মুক্তিযুদ্ধ, স্বাধীনতা ও সুখী সমৃদ্ধ বাংলাদেশ গঠনে ডিজিটাল প্রযুক্তির ব্যবহার’ শীর্ষক আলোচনা সভার আয়োজন থাকবে। এ সব কর্মসূচি সুষ্ঠুভাবে বাস্তবায়নের জন্য ১৪ টি উপ-কমিটি গঠন করা হয়েছে বলে জানান অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. মনিরুজ্জামান।