প্রাইম ব্যাংককে হারিয়ে ফাইনালে শেখ জামালের প্রতিপক্ষ প্রাইম দোলেশ্বর

505

ঢাকা, ১ মার্চ ২০১৯ (বাসস) : ঢাকা প্রিমিয়ার ডিভিশন ক্রিকেট লিগের প্রথম টি-২০ আসরের ফাইনালে মুখোমুখি হবে শেখ জামাল ধানমন্ডি ক্লাব ও প্রাইম দোলেশ্বর স্পোটিং ক্লাব। আজ টুর্নামেন্টের দ্বিতীয় সেমিফাইনালে প্রাইম দোলেশ্বর ৬ উইকেটে হারিয়েছে প্রাইম ব্যাংক ক্রিকেট ক্লাবকে। এই জয়ে ৪ মার্চের ফাইনালে শেখ জামালের প্রতিপক্ষ হিসেবে নাম লেখায় প্রাইম দোলেশ্বর। দিনের প্রথম সেমিফাইনালে শেখ জামাল ৫ উইকেটে হারিয়েছিলো শাইনপুকুর ক্রিকেট ক্লাবকে।
মিরপুর শেরে বাংলা জাতীয় স্টেডিয়ামে অনুষ্ঠিত ম্যাচে টস জিতে প্রথমে বোলিং করার সিদ্বান্ত নেয় প্রাইম দোলেশ্বর। ব্যাট হাতে নেমে বিপদে পড়ে প্রাইম ব্যাংক। ৭১ রানের মধ্যে ৫ উইকেট হারিয়ে বসে তারা। সতীর্থদের যাওয়া আসার মাঝেও অন্য প্রান্ত দিয়ে রানের চাকা সচল রেখেছিলেন তিন নম্বরে নামা জাকির হাসান। ষষ্ঠ উইকেটে জাকিরের সঙ্গী হন অলক কাপালি। এই জুটি ৩৫ বল মোকাবেলা করে ৬৫ রান যোগ করেন। ৫টি চার ও ১টি ছক্কায় ৩৯ বলে ৫২ রানে আউট হন জাকির। তবে ক্রিজে থেকে যান কাপালি।
ইনিংসের শেষদিকে মারমুখী হয়ে উঠে কাপালির ব্যাট। ফলে বড় সংগ্রহের স্বপ্ন দেখতে থাকে প্রাইম ব্যাংক। ৬টি চার ও ৩টি ছক্কায় ৩১ বলে ৫৫ রানের দারুণ ইনিংস খেলেন কাপালি। ফলে ২০ ওভারে ৯ উইকেটে ১৭০ রানের লড়াকু সংগ্রহ পায় প্রাইম ব্যাংক। প্রাইম দোলেশ্বরের অধিনায়ক ফরহাদ রেজা ৩২ রানে ৫ উইকেট নেন। জাকির-কাপালির উইকেটও শিকার করেন ফরহাদ।
জয়ের জন্য ১৭১ রানের টার্গেটে শুরুটা ভালোই করে প্রাইম দোলেশ্বর। তবে রানের তোলার গতি ছিলো কম। উদ্বোধনী জুটিতে ৪৬ বলে ৫১ রান দলকে এনে দেন দুই ওপেনার সাইফ হোসেন ও মোহাম্মদ আরাফাত। আরাফত ১৯ রানে থামলেও হাফ- সেঞ্চুরি তুলে নেন সাইফ। দ্বিতীয় উইকেটে মার্শাল আইয়ুবের সাথে ৫৩ বলে ৭৬ রান যোগ করেন সাইফ। ১৭তম ওভারে দলীয় ১২৮ রানে থেমে যান সাইফ। ৫টি চার ও ২টি ছক্কায় ৪৯ বলে ৬১ রান করেন তিনি।
সাইফের বিদায়ের সময় ম্যাচ জিততে শেষ ৩ ওভারে ৭ উইকেট হাতে নিয়ে ৪৩ রান প্রয়োজন ছিলো প্রাইম দোলেশ্বরের। এ অবস্থায় ক্রিজে আসেন ফরহাদ। মার্শালকে নিয়ে দ্রুতই রান তুলতে থাকেন তিনি। ২টি করে চার ও ছক্কায় ১৯তম ওভারের দ্বিতীয় বলে ৩১ বলে ৪৬ রান করে মার্শাল আউট হলেও, দলের আশা টিকিয়ে রাখেন ফরহাদ। শেষ পর্যন্ত সৈকত আলীকে নিয়ে দলের আশা পূরণ করেন ফরহাদ। মাত্র ৮ বলে ২টি করে চার ও ছক্কায় ২৪ রান তুলে অপরাজিত থেকে দলের জয় নিশ্চিত করেন অধিনায়ক। ম্যাচ সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হন বিজয়ী দলের অধিনায়ক ফরহাদ রেজা।