বাসস ক্রীড়া-১৫ : খুলনার বিপক্ষে দুর্দান্ত জয় কুমিল্লার

438

বাসস ক্রীড়া-১৫
ক্রিকেট-বিপিএল
খুলনার বিপক্ষে দুর্দান্ত জয় কুমিল্লার
সিলেট, ১৮ জানুয়ারি, ২০১৯ (বাসস) : বাংলাদেশ প্রিমিয়ার লিগ (বিপিএল) টি-২০ ক্রিকেট টুর্নামেন্টের ষষ্ঠ আসরের ২০তম ম্যাচে খুলনা টাইটান্সকে ৩ উইকেটে হারিয়েছে কুমিল্লা ভিক্টেরিয়ান্স। এই জয়ে ৬ খেলায় ৪ জয় ও ২ হারে ৮ পয়েন্ট সংগ্রহে থাকলো কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সের। অপরদিকে, ৬ ম্যাচে ১ জয় ও ৫ হারে ২ পয়েন্ট সংগ্রহে আছে খুলনার।
সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে টস জিতে প্রথমে ফিল্ডিং করার সিদ্বান্ত নেয় কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স। ব্যাটিং-এর শুরুটা ভালো হয়নি খুলনার। শুন্য রানে ফিরে যান ওপেনার জহিরুল ইসলাম। তবে দ্বিতীয় উইকেটে ৩৯ বলে মোকাবেলা করে ৭১ রানের দুর্দান্ত এক জুটি গড়েন আরেক ওপেনার জুনায়েদ সিদ্দিকী ও আল-আমিন। আল-আমিন ১৯ বলে ৪টি চার ও ১টি ছক্কায় ৩২ রানে থামলেও, হাফ-সেঞ্চুরি তুলে নেন জুনায়েদ।
হাফ-সেঞ্চুরির পরও দলের রানে চাকা ঘুরিয়েছে জুনায়েদ। ফলে ১৫ ওভারেই ১৪৫ রানের সংগ্রহ পেয়ে যায় খুলনা। এ অবস্থায় শেষ ৫ ওভারে রানের পাহাড়ে উঠার স্বপ্ন দেখছিলো খুলনা। কিন্তু ১৬তম ওভারের প্রথম বলে রান আউট হয়ে যান জুনায়েদ। ৪টি করে চার ও ছক্কায় ৪১ বলে ৭০ রান করেন জুনায়েদ।
এরপর অধিনায়ক মাহমুদুুল্লাহ রিয়াদের ৯ বলে ১৬, ইংল্যান্ডের ডেভিড মালানের ২৫ বলে ২৯, ওয়েস্ট ইন্ডিজের কার্লোস ব্র্যাথওয়েটের ৯ বলে ১২ ও আরিফুল হকের ৯ বলে ১৩ রানের সুবাদে ৭ উইকেটে ১৮১ রানের বড় সংগ্রহই পায় খুলনা। কুমিল্লার পাকিস্তানী খেলোয়াড় শহিদ আফ্রিদি ৩৫ রানে ৩ ও ওয়াহাব রিয়াজ ২ উইকেট নেন।
১৮২ রানের বড় টার্গেটে যেমন শুরু প্রয়োজন ছিলো, ব্যাট হাতে নেমে কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্সকে তেমন শুরুই এনে দেন দলের দুই ওপেনার তামিম ইকবাল ও এনামুল হক। ৭৩ বলে ১১৫ রানের বড় সংগ্রহ এনে দেন তামিম ও আনামুল। এরমধ্যে ৭৩ রানই ছিলো তামিমের। ১২টি চার ও ১টি ছক্কায় ৪২ বল মোকাবেলা করে নিজের দর্শনীয় ইনিংসটি সাজান তামিম। এবারের বিপিএলে এটিই তামিমের প্রথম হাফ-সেঞ্চুরি।
এরপর আনামুল ৪০ ও চার নম্বরে শামসুর রহমান ১ রান করে ফিরে গেলে চাপ পড়ে যায় কুমিল্লা। তখন ৩৬ বলে ৫৩ রান দরকার ছিলো তাদের। হাতে ছিলো ৮ উইকেট।
এ অবস্থায় মারমুখী হয়ে উঠেন অধিনায়ক ইমরুল কায়েস। ইংল্যান্ডের ডসনকে নিয়ে ১৫তম ওভারে ১৩ ও ১৬তম ওভারে ১১ রান যোগ করেন কায়েস। তাই শেষ ২৪ বলে ২৯ রান দরকার পড়ে কুমিল্লার।
তবে ১৭তম ওভারের দ্বিতীয় ও তৃতীয় বলে ডসন ও ইমরুলকে শিকার করে খুলনাকে খেলার ফেরানোর পথ তৈরি করেন পাকিস্তানের পেসার জুনায়েদ খান। এরপর ক্রিজে যোগ দেন শ্রীলংকার থিসারা পেরেরা ও পাকিস্তানের আফ্রিদি। ১টি করে চার ও ছক্কা মেরে জুনায়েদের তৃতীয় শিকার হন আফ্রিদি।
শেষ পর্যন্ত ম্যাচ জিততে এক ওভারে ৮ রান দরকার পড়ে কুমিল্লার। ব্রাথওয়েটের করা শেষ ওভারের তৃতীয় বলে চার ও চতুর্থ বলে ছক্কা মেরে কুমিল্লাকে দুর্দান্ত এক জয় এনে দেন পেরেরা। ২টি ছক্কা ও ১টি চারে ৭ বলে অপরাজিত ১৮ রান করেন পেরেরা। খুলনার জুনায়েদ ৪টি উইকেট নেন।
সংক্ষিপ্ত স্কোর :
খুলনা টাইটান্স : ১৮১/৭, ২০ ওভার (জুনায়েদ ৭০, আল-আমিন ৩২, আফ্রিদি ৩/৩৫)।
কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স : ১৮৬/৭, ১৯.৪ ওভার (তামিম ৭৩, আনামুল ৪০, জুনায়েদ ৪/৩২)।
ফল : কুমিল্লা ভিক্টোরিয়ান্স ৩ উইকেটে জয়ী।
ম্যাচ সেরা : তামিম ইকবাল(কুমিল্লা)
বাসস/এএসজি/এএমটি/২৩২৫/স্বব