বাসস দেশ-১৫ : সাওল হার্ট সেন্টারের দশম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন

208

বাসস দেশ-১৫
সাওল হার্ট সেন্টার-প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী
সাওল হার্ট সেন্টারের দশম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন
ঢাকা, ৯ জানুয়ারি, ২০১৯ (বাসস): রিং ছাড়া ও বিনা অপারেশনে হৃদরোগ চিকিৎসার পথিকৃত সাওল হার্ট সেন্টারের সফলতার দশম প্রতিষ্ঠা বার্ষিকী উদযাপন করা হয়েছে।
এ উপলক্ষ্যে আজ বুধবার রাজধানীর ইস্কাটনের প্রধান শাখা ও চট্টগ্রামে দিনব্যাপী ফ্রি চিকিৎসা পরামর্শ দেয়া হয়। উভয় শাখায় দুই শতাধিক রোগী এই চিকিৎসা সুবিধা গ্রহণ করেন।
ঢাকায় সাওল মিলনায়তনে আয়োজিত এক অনুষ্ঠানে সাওল বাংলাদেশের প্রতিষ্ঠাতা কবি মোহন রায়হান স্বাগত বক্তৃতায় বলেন, সাওল চিকিৎসা পদ্ধতি বাংলাদেশে চালু ও গ্রহণযোগ্য করে তোলা ছিল বিরাট চ্যালেঞ্জ। আমরা সে চ্যালেঞ্জে বিজয়ী হয়েছি।
তিনি বলেন, এ পর্যন্ত ৩০ হাজারের বেশি হার্টের রোগীকে আমরা সাওল পদ্ধতিতে গত দশ বছরে সুস্থ্য রেখেছি। আমরা বিনাতেলে খাবারের ‘অয়েল ফ্রি কিচেন’ ও ক্যাফে প্রতিষ্ঠা করে স্বাস্থ্যসম্মত ও সুস্বাদু খাবারের হোমডেলিভারী এবং ক্যাটারিংয়ের ব্যবস্থা করেছি।
তিনি আরো বলেন, আমরা হার্ট, ইয়োগা, ডায়েটের ফ্রি সেমিনার আয়োজন করে এবং মানুষের খাদ্যাভ্যাস ও জীবনধারা পরিবর্তনের মাধ্যমে সুস্থ্য রাখার সামাজিক আন্দোলন চালিয়ে যাচ্ছি। এসময় তিনি এই মানবিক আন্দোলনে সবাইকে এগিয়ে আসার আহবান জানান।
অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি ডাকসুর সাবেক ভিপি ও সাবেক সংসদ সদস্য গাজীপুর জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান আখতারউজ্জামান বলেন, সাওলের এই বিজ্ঞান সম্মত সফল হৃদরোগ চিকিৎসা পদ্ধতি দেশব্যাপী তৃণমূলে পৌঁছে দিয়ে সুবিধা বঞ্চিত মানুষকে এই সুযোগের অংশীদার করতে হবে।’
অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি বাংলাদেশ সশস্ত্র বাহিনীর অবসরপ্রাপ্ত কনসালটেন্ট সার্জন জেনারেল বিজয় কুমার সরকার বলেন, একজন ডাক্তার হিসেবে আমি এই চিকিৎসা পদ্ধতির জনক আমেরিকার কিংবদন্তি চিকিৎসক ডাঃ ডিন অর্নিশের ‘রিভার্সাল হার্ট ডিজিস’ বইটি পড়ে নিজে কনভিন্স হয়ে এই পদ্ধতির একজন সমর্থক হয়েছি এবং বাংলাদেশে হৃদরোগ চিকিৎসার পূর্ণাঙ্গ জীবন ব্যবস্থা সাওল আন্দোলনের সঙ্গে নিজেকে যুক্ত করেছি।
অনুষ্ঠানে আরো বক্তব্য রাখেন, সাওল হার্ট সেন্টার বাংলাদেশের সিনিয়র কনসালটেন্ট ডা: এমএম রহমান, চট্টগ্রাম শাখায় কনসালটেন্ট ডা: ফারহান আহমেদ ইমন এবং প্রফেসর ডা: মাহমুদুল হক চৌধুরী।
অনুষ্ঠানে দেশের বিশিষ্ট গণ্যমান্য ব্যক্তিগণ উপস্থিত ছিলেন। শেষে আগত অতিথিদের প্রতিষ্ঠা বার্ষিকীর কেক ও বিনাতেলে মধ্যাহ্ন ভোজে আপ্যায়িত করা হয়।
বাসস/সবি/এমএমবি/১৯৫৫/-আসচৌ