বাসস ক্রীড়া-১৮ : জয়কে দীপাবলীর উপহার হিসেবে দেখছেন রাজপুত

138

বাসস ক্রীড়া-১৮
ক্রিকেট-সিলেট টেস্ট
জয়কে দীপাবলীর উপহার হিসেবে দেখছেন রাজপুত
সিলেট, ৬ নভেম্বর ২০১৮ (বাসস) : টেস্ট ফরম্যাটে পাঁচ বছর ও বিদেশের মাটিতে ১৭ বছর হলো জয় নেই জিম্বাবুয়ের। এই পরিসংখ্যান বলে দিচ্ছে, বড় ফরম্যাটে জয়ের জন্য জিম্বাবুয়ে কতটা ক্ষুর্ধাত। অবশেষে জিম্বাবুয়ের ক্ষুধা মিটেছে। সিলেটের অভিষেক টেস্টে স্বাগতিক বাংলাদেশকে ১৫১ রানের বড় ব্যবধানে হারায় আইসিসি টেস্ট র‌্যাংকিং-এর সর্বশেষ দল জিম্বাবুয়ে। দলের এমন জয়কে অনেক বড় করে দেখছেন জিম্বাবুয়ের ভারতীয় কোচ লালচাঁন রাজপুত। তাই জয়কে নিজ দেশের বড় উৎসব দীপাবলীর সাথে তুলনা করেছেন রাজপুত।
ম্যাচ শেষে সংবাদ সম্মেলনে রাজপুত বলেন, ‘সবাই জানে, ভারতে দীপাবলী একটি বিশাল ব্যাপার। আমি ছেলেদের আগের দিন খেলা শেষে বলেছিলাম, এ ম্যাচ জিতে তারা আমাকে দীপাবলীর উপহার দিতে পারে এবং তারা খুবই ভালো খেলেছে।’
দীর্ঘদিন এমন জয় দলের আত্মবিশ্বাস বাড়িয়ে দিয়েছে বলে মনে করেন রাজপুত। তিনি বলেন, ‘অনেক বছর ধরেই জিম্বাবুয়ে টেস্ট ক্রিকেটে ভালো করছে না। তারা অনেক সমস্যায় ছিল। কিন্তু যদি আপনি জিতেন, তবে এসব সমস্যা একপাশে সরে যায়। জয়টি আমাদের জন্য খুবই গুরুত্বপূর্ণ। এমনকি দলের জন্যও। এমন জয় ড্রেসিংরুমেও ভিন্ন ধরনের অনুভূতি নিয়ে আসে। এ জয়ের রেশ অনেকদিন পর্যন্ত থাকবে। আমি নিশ্চিত খেলোয়াড় এবং দলের আত্মবিশ^াস অনেক বেশি বেড়ে গেছে।’
বাংলাদেশের কন্ডিশনে এমন জয় জিম্বাবুয়ের ক্রিকেটের জন্য নতুন জীবন বলে মনে করেন রাজপুত। তিনি বলেন, ‘অবশ্যই এটা অনেক বড় এক অর্জন। কারণ বড় বড় টেস্ট খেলুড়ে দেশ এখানে এসে সংগ্রাম করেছে। সেখানে এটা আমাদের জন্য অনেক বড় এক জয়। এ জয়ে জিম্বাবুয়ে ক্রিকেটের নতুন জীবন পেয়েছে। আমরা বিশ^াস করতে শুরু করেছি যে, আমরা কেবল দেশে নয়, দেশের বাইরেও জিততে পারি। এটা কেবল শুরু, এখান থেকেই আমাদের এগিয়ে যেতে হবে।’
ওয়ানডে সিরিজে হোয়াইটওয়াশের পর দুর্দান্ত পারফরমেন্সে টেস্ট সিরিজ শুরু করেছে জিম্বাবুয়ে। এজন্য দলের খেলোয়াড়দের প্রশংসা করলেন রাজপুত। তিনি বলেন, ‘ওয়ানডে সিরিজে ৩-০ ব্যাবধানে হোয়াইটওয়াশ হওয়ার পর আমরা যেভাবে ঘুরে দাঁড়িয়েছি, তা সত্যিই দুর্দান্ত। আমরা এটার জন্য প্রস্তুত ছিলাম। আমি খুশি, ছেলেরা তাদের প্রতিভার প্রদর্শন করতে পেরেছে। আজকে আমাদের জন্য অসধারণ একটি দিন ছিলো।’
বাসস/এএসজি/এএমটি/১৮৫৫/মোজা/স্বব