বাসস ক্রীড়া-৬ : পোল্যান্ডের সাথে ১-১ গোলে ড্র করে পেনাল্টি মিসের খেসারত দিল স্পেন

16

বাসস ক্রীড়া-৬
ফুটবল-ইউরো ২০২০
পোল্যান্ডের সাথে ১-১ গোলে ড্র করে পেনাল্টি মিসের খেসারত দিল স্পেন
সেভিয়া, ২০ জুন ২০২১ (বাসস) : পোল্যান্ডের সাথে ১-১ গোলে ড্র করে ইউরো চ্যাম্পিয়নশীপ থেকে ছিটকে পড়ার শঙ্কায় পড়েছে স্পেন। কোচ লুইস এনরিকে স্বীকার করেছেন তিনি তার দলের কাছ থেকে আরো বেশী কিছু আশা করেছিলেন।
জেরার্ড মোরেনো পেনাল্টি মিস করলেও ম্যাচে আর এগিয়ে যাওয়া হয়নি সাবেক চ্যাম্পিয়নদের। এর আগে সেভিয়ার মাঠে ২৫ মিনিটে আলভারো মোরাতার গোলে এগিয়ে গিয়েছিল স্প্যানিশরা। বিরতির পর রবার্ট লিওয়ানোদোস্কির হেডে সমতায় ফেরার পাশাপাশি পোল্যান্ডের জন্য গুরুত্বপূর্ণ এক পয়েন্ট অর্জিত হয়। স্পেনের সাথে গোলশুন্য ড্র দিয়ে টুর্নামেন্ট শুরু করা স্পেন এখন দুই ম্যাচে মাত্র দুই পয়েন্ট নিয়ে গ্রুপ-ই’র তৃতীয় স্থানে রয়েছেন। নক আউট পর্বের আশা টিকিয়ে রাখতে হলে বুধবার শেষ ম্যাচে অবশ্যই স্লোভাকিয়াকে পরাজিত করতে হবে।
দুই ম্যাচে এক জয় ও এক ড্র নিয়ে চার পয়েন্টসহ গ্রুপের শীর্ষস্থানে রয়েছে সুইডেন। তাদের থেকে এক পয়েন্ট পিছিয়ে দ্বিতীয় স্থানে রয়েছে স্লোভাকিয়া। তলানিতে থাকা পোল্যান্ডের সংগ্রহ মাত্র ১ পয়েন্ট।
স্প্যানিশ কোচ এনরিকে বলেন, ‘সত্যিকার অর্থেই আমি আরো বেশী আশা করেছিলাম। আমার প্রত্যাশা ছিল দুই ম্যাচে ৬ পয়েন্ট ও কোন গোল হজম না করা। কিন্তু এখন পরিস্থিতি সম্পূর্ণ ভিন্ন। এখন আমাদের সামনে বাঁচা মরার লড়াই। আমাদের টিকে থাকতে হলে জয় ছাড়া বিকল্প পথ খোলা নেই। জিততে পারলে নক আউট পর্বে যাব, নাহলে বাদ। এটাই বাস্তবতা।’
পোস্টের খুব কাছে থেকে মোরাতা স্পেনকে এগিয়ে দিলেও লিওয়ানোদোস্কির মৌসুমের ৬০তম গোলে পোলিশরা সমতায় ফিরে। এরপর মোরোনোর স্পট কিক বারে লাগলে স্পেনের কপাল পুড়ে। ফিরতি বলে মোরাতা সুযোগ পেলেও পোলিশ গোলরক্ষক ওজিচে সিজিসনি ডাকদিনে ঝাঁপিয়ে পড়ে তা রক্ষা করেন। এই ম্যাচে আরো একবার প্রমান হলো বড় টুর্নামেন্টে একটি দলের এগিয়ে যাবার জন্য লিওয়ানোদোস্কির মত দক্ষ খেলোয়াড়ই যথেষ্ঠ। তার গোলে আরো একবার পোলিশরা টুর্নামেন্টে টিকে থাকার স্বপ্ন দেখতে শুরু করেছে।
এনরিকে আরো বলেন, ‘পোল্যান্ডও আজ আমাদের বিপক্ষে জয়ের বেশ কিছু সুযোগ তৈরী করেছিল। আমরা সত্যিই শেষ পর্যন্ত বিপদে ছিলাম।’
কাল মূল একাদশে ফেরান টরেসের পরিবর্তে মোরোনোকে নামানো হয়েছিল। । ভিয়ারিয়ালের এই স্ট্রাইকার গত লা লিগা মৌসুমে লিওনেল মেসির পওে ২৩ গোল করে সর্বোচ্চ গোলদাতার তালিকায় দ্বিতীয় স্থান দখল করেছিলেন।
ম্যাচের শুরুতে মোরাতা একটি পেনাল্টি প্রায় আদায় করে নিয়েছিলেন। কিন্তু ইতালিয়ান রেফারি ড্যানিয়েল ওরসাতো তাতে সায় দেননি। বল ও পজিশনের দিক থেকে স্প্যানিশরা আধিপত্য দেখিয়েছে। মোরতার একটি শক্তিশালী শট অল্পের জন্য পোস্টের উপর দিয়ে বাইরে চলে যায়। কিন্তু পোল্যান্ড বিরতির আগেই বিপদজনক হয়ে উঠতে থাকে। ২৫ মিনিটে মোরাতার সবচেয়ে সেরা মুহূর্তটি উপস্থিত হয়। ডানদিক থেকে মোরোনোর সহায়তায় মোরাতা বল জালে জড়ালেও অফসাইডেন পতাকা উঠলে গোলটি নিয়ে শঙ্কা দেখা দেয়। কিন্তু ভিএআর প্রযুক্তি গোলটির পক্ষে সিদ্ধান্ত জানায়। বিরতির আগে পোল্যান্ড দুইবার সমতায় ফেরার সুযোগ নষ্ট করে। ক্যারোল সুইডার্স্কির কার্লিং শট পোস্টে লেগে ফেরত আসে। ফিরতি বলে লিওয়ানোদোস্কি স্প্যানিশ গোলরক্ষক উনাই সাইমনকে পরাস্ত করতে পারেননি।
বিরতির পর কোন ভুল করেননি লিওয়নোদোস্কি। দারুন এক হেডে ৫৪ মিনিটে পোল্যান্ডকে সমতায় ফেরান এই বায়ার্ন তারকা। মিডফিল্ডার ক্লিচের বিপক্ষে আদায় করা পেনাল্টি থেকে অবশ্য চার মিনিট পর গোল করতে ব্যর্থ হন মোরেনো। মোরেনোর শট পোস্টে লাগে, ফিরতে বলে মোরাতাও জালের ঠিকানা খুঁজে পাননি।
বাসস/এএসজি/নীহা/১৪১৫/স্বব