এ বাজেট দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে কান্ডারির ভূমিকা পালন করবে : সরকারি দল

341

ঢাকা, ১৫ জুন, ২০২১ (বাসস): জাতীয় সংসদে ২০২১-২০২২ অর্থ বছরের বাজেট আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সদস্যরা আজ বলেছেন, বৈশ্বিক মহামারি মোকাবেলা করে এ বাজেট উন্নয়নের মহাসড়কে ধাবমান দেশের অর্থনীতিকে এগিয়ে নিতে কান্ডারির ভূমিকা পালন করবে।
গত ৩ জুন অর্থমন্ত্রী আ হ ম মুস্তফা কামাল সংসদে ৬ লাখ ৩ হাজার ৬৮১ কোটি টাকার এ বাজেট প্রস্তাব পেশ করেন। আজ বাজেটের ওপর সাধারণ আলোচনা শুরু হয়েছে। এর আগে গত ৭ জুন সংসদে চলতি অর্থ বছরের সম্পুরক বাজেট পাস করা হয়।
আজ বাজেটের ওপর আলোচনায় অংশ নেন বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুন্সি, হুইপ আতিউর রহমান আতিক, সরকারি দলের এবাদুল হক, সাহিদুজ্জামান, মেহের আফরোজ চুমকি, সুলতানা নাবিলা, জাসদের হাসানুল হক ইনু, জাতীয় পার্টির মুজিবুল হক, আহসান আদিলুর রহমান, বিএনপির গোলাম মোহাম্মদ সিরাজ ও রুমীন ফারহানা।
আলোচনায় অংশ নিয়ে বাণিজ্য মন্ত্রী টিপু মুন্সি বাজেট সমালোচনার জবাবে বলেন, শত সমালোচনার মুখেও গত এক যুগে জাতি হিসেবে আমরা অনেক এগিয়েছি। ধারাবাহিকভাবে আমাদের প্রবৃদ্ধি বেড়েছে, মাথাপিছু আয় বেড়েছে, রেমিট্যান্স বেড়েছে, রিজার্ভ বেড়েছে, গড় আয়ু বেড়েছে, জীবনমান উন্নত হয়েছে। বিপরীতে দারিদ্র্য হার, মা ও শিশু মৃত্যু হার, আয় বৈষম্য ও নিরক্ষরতার হার হ্রাস পেয়েছে।
তিনি বলেন, চলতি অর্থ বছরে দেশের রফতানির লক্ষ্য ৪৮ বিলিয়নের মধ্যে ইতোমধ্যে ৯৫ ভাগ অর্জন হয়েছে। করোনার মধ্যে এটা যে বড় অর্জন এটা সমালোচকরা দেখেন না। আগামী অর্থবছরে রফতানির লক্ষ্যমাত্রা নির্ধারন করা হয়েছে ৫০ বিলিয়ন ডলার। এ লক্ষ্যও সরকার অর্জন করবে। তাছাড়া এ মহামারির মধ্যেও বর্তমান সরকার আর্থ-সামাজিক সব খাতকে সচল রাখতে সম্ভব হয়েছে।
জাসদের হাসানুল হক ইনু বলেন, বাজেটে অনেক ভালো ও ইতিবাচক দিক রয়েছে। এর সফলভাবে বাস্তবায়ন করতে হবে। বিশেষ করে বাস্তবায়ন পর্যায়ে সুশাসন নিশ্চিত করতে হবে। স্বচ্ছতা নিশ্চিত ও দুর্নীতি বন্ধ করতে হবে। এছাড়া তিনি করোনাকালে প্রণোদনা খাতে ৩০ হাজার কোটি টাকা বরাদ্দ নিশ্চিত করার প্রস্তাব দেন।
আলোচনায় অংশ নিয়ে সরকারি দলের সদস্যরা বলেন, এ বাজেট বাস্তবায়নের মাধ্যমে করোনায় ক্ষতিগ্রস্ত আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থা মেরামত করে পুনরায় প্রাণসঞ্চার করে কাঙ্খিত প্রবৃদ্ধি অর্জনে সহায়ক হবে। ইতোমধ্যে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার দূরদর্শী নেতৃত্বে সফলভাবে করোনা মোকাবেলা করা সম্ভব হচ্ছ। তারা বলেন, এজন্য বিশ্বের বিভিন্ন দেশ ও আন্তর্জাতিক সংস্থা প্রধানমন্ত্রীর প্রশংসা করেছে। বিশেষ করে করোনাকালে আর্থ-সামাজিক ব্যবস্থা ও সাধারণ জীবন সচল রাখতে যে প্রণোদনা দেয়া হয়েছে তা অর্থনীতি পুনরুদ্ধারে সহায়ক ভূমিকা পালন করেছে। এবারো বাজেটে সামাজিক নিরাপত্তা খাতকে সর্বোচ্চ গুরুত্ব দিয়ে সবচেয়ে বেশি বরাদ্দ দেয়া হয়েছে। এছাড়া স্বাস্থ্য, কৃষি, শিল্প, বাণিজ্য, সেবাখাতসহ সব খাতে পর্যাপ্ত বরাদ্দ রাখা হয়েছে।