বাসস দেশ-৩১ : আর কোনো দালালি-দখলবাজির সুযোগ দেয়া হবে না : মেয়র তাপস

129

বাসস দেশ-৩১
ডিএসসিসি-তাপস
আর কোনো দালালি-দখলবাজির সুযোগ দেয়া হবে না : মেয়র তাপস
ঢাকা, ২ জুন, ২০২১ (বাসস) : ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে (ডিএসসিসি) আর কোনো দালালি-দখলবাজির সুযোগ দেয়া হবে না বলে জানিয়েছেন মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস।
আজ নগর ভবনের ব্যাংক ফ্লোরে কর্পোরেশনের তেলেগু সম্প্রদায়ের পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের মধ্যে ‘পরিচ্ছন্নকর্মী নিবাস’ এর বরাদ্দপত্র ও চাবি হস্তান্তর অনুষ্ঠানে তিনি এ কথা বলেন।
মেয়র ব্যারিস্টার শেখ ফজলে নূর তাপস বলেন, ‘তেলেগু সম্প্রদায়ের মধ্যে পরিচ্ছন্নকর্মী নিবাসের চাবি হস্তান্তরের মাধ্যমে, আজ থেকে দালাল চক্রের অবসান ঘটলো। ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে এখন থেকে আর দালালি করার সুযোগ পাওয়া যাবে না। যারা ন্যায্য দাবিদার, যারা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে কর্মরত পরিচ্ছন্নকর্মী, তারাই এ বাসার হকদার। তারাই এ বাসাগুলো পাবে। কোনো হকদার যেন বঞ্চিত না হয়, আমরা সেটা নিশ্চিত করবো।’
তিনি বলেন, ‘এরকম উদাহরণ আছে যে, বাসা বরাদ্দ পায় একজন, গিয়ে দখল করে আরেকজন। দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে এখন থেকে আর কোনো দখলবাজি চলবে না। যারা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে কর্মরত শুধু তারাই বাসা পাবে।’
গৃহ ছাড়া যেন কেউ না থাকে সেটাই মুজিববর্ষের অঙ্গীকার উল্লেখ করে মেয়র শেখ তাপস বলেন, ‘আপনাদের একটি বিষয় উপলব্ধি করতে হবে, যে কোন সংস্থা বা যে কোন প্রতিষ্ঠান যখন আবাসনের ব্যবস্থা নেয় বা উদ্যোগ গ্রহণ করে প্রথমে প্রাধিকার পায় ঊর্ধ্বতন কর্মকর্তারা। পরবর্তীতে অন্যান্য কর্মকর্তারা তারপরে আসে কর্মচারী। কিন্ত প্রধানমন্ত্রী বলেছেন, আমাদের অবহেলিত তেলেগু, হরিজন, দলিত সম্প্রদায়কে আগে আবাসনের ব্যবস্থা করতে হবে। সেই উদ্যোগ সিটি কর্পোরেশন নিয়েছে।’
পরিচ্ছন্নতাকর্মীদের জন্য আলাদা আলাদা সম্প্রদায়ভিত্তিক আবাসনের ব্যবস্থা যেমন করা হবে তেমনি কর্পোরেশনের কর্মকর্তাদের জন্য আবাসনের ব্যবস্থা করা হবে জানিয়ে ডিএসসিসি মেয়র ব্যারিস্টার শেখ তাপস বলেন, ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের সকল কর্মকর্তা-কর্মচারীদের আবাসনের জন্য উদ্যোগ গ্রহণ করছে।
ঢাকা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের অনেক জায়গা উত্তর সিটি কর্পোরেশনের কর্মচারীরা দখল করে রেখেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, সেগুলো দখলমুক্ত করার কার্যক্রম গ্রহণ করা হবে। যারা উত্তর সিটি কর্পোরেশনে চাকরি করেন তাদের উত্তর সিটি কর্পোরেশনের জায়গায় চলে যেতে হবে। যারা দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনে চাকরি করেন কেবল তারাই দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের এসব সুযোগ-সুবিধা পাবেন।
অনুষ্ঠানে মঙ্গলবারের জলজট প্রসঙ্গে মেয়র বলেন, ‘মঙ্গলবারের বৃষ্টিতে যেসব স্থানে জলজটের সৃষ্টি হয়েছে, সেখানে গতবারের চেয়ে কম জলাবদ্ধ হয়েছে। তারপরেও আমরা ব্যবস্থা গ্রহণ করছি, আগামীতে যেন এসব স্থান থেকে দ্রুত জলাবদ্ধতা নিরসন করা যায়। আমরা আশাবাদী অচিরেই জলাবদ্ধতার সমস্যার সমাধান হবে। আমাদের লক্ষ্য সাধারণ মাত্রার বৃষ্টিপাত হলে, ঢাকা শহরে যেন পানি না জমে। অতি ভারী মাত্রার বৃষ্টিপাত হলে যেন তিন ঘণ্টার মধ্যে, ভারী বৃষ্টিপাত হলে যেন দুই ঘণ্টার মধ্যে এবং মাঝারি ভারী বৃষ্টি হলে যেন এক ঘণ্টার মধ্যেই পানি নিষ্কাশন হয়ে যায়, সেই ভাবে আমরা আমাদের কর্মপরিকল্পনা নির্ধারণ করছি।’
অনুষ্ঠানে মেয়র ঢাকাবাসীকে উন্মুক্ত স্থানে বর্জ্য না ফেলার আহ্বান জানান।
সিটি কর্পোরেশনের প্রধান নির্বাহী কর্মকর্তা ফরিদ উদ্দিন আহাম্মদের সভাপতিত্বে এই অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ঢাকা-৫ আসনের সংসদ সদস্য কাজি মনিরুল ইসলাম, দক্ষিণ সিটি কর্পোরেশনের ৪৯ নম্বর ওয়ার্ডের কাউন্সিলর বাদল সরদার, ১৪ নম্বর ওয়ার্ডের সংরক্ষিত মহিলা কাউন্সিলর লাভলী চৌধুরী।
সভা শেষে মেয়র তেলেগু সম্প্রদায়ের ৯৫ জন পরিচ্ছন্নতাকর্মীর মাঝে ‘শিমুল’ ও ‘মুকুল’ নামীয় পরিচ্ছন্নকর্মী নিবাসের বরাদ্দপত্র ও চাবি হস্তান্তর করেন।
বাসস/সবি/এমএসএইচ/১৯৫৫/-এমএন