বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ড. ওয়াজেদ মিয়া আদর্শ ও অনুকরণীয় হয়ে থাকবেন : পলক

109

ঢাকা, ৯ মে, ২০২১ (বাসস) : তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি প্রতিমন্ত্রী জুনাইদ আহমেদ পলক বলেছেন, বিশিষ্ট পরমাণু বিজ্ঞানী ড. ওয়াজেদ মিয়া ছিলেন নির্লোভ, নিরহংকার ও প্রচার বিমুখ মানুষ।
তিনি বলেন, বর্ণাঢ্য কর্মময় জীবনের অধিকারী এই পরমাণু বিজ্ঞানী তার সমগ্র কর্মজীবনে মেধা, মনন ও সৃজনশীলতা দিয়ে দেশ, জাতি ও জনগণের কল্যাণে নিরলসভাবে কাজ করে গেছেন।
জুনাইদ আহমেদ পলক আজ অনলাইনে তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের উদ্যোগে দেশ বরেণ্য ও আন্তর্জাতিক খ্যাতি সম্পন্ন পরমাণু বিজ্ঞাণী ড. এম এ ওয়াজেদ মিয়ার ১২ তম মৃত্যুবার্ষিকী উপলক্ষে আয়োজিত আলোচনা সভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে এসব কথা বলেন।
তথ্য ও যোগাযোগ প্রযুক্তি বিভাগের সচিব এন এম জিয়াউল আলমের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠিত সভায় অন্যান্যের মধ্যে বক্তব্য রাখেন বাংলাদেশ আনবিক শক্তি কমিশনের চেয়ারম্যান প্রফেসর ডা. সানোয়ার হোসেন, আইসিটি বিভাগের অতিরিক্ত সচিব ডা. বিকর্ণ কুমার ঘোষ, রংপুর জেলা প্রশাসক মো. আসিব আহসান এবং পীরগঞ্জ উপজেলা আওয়ামী লীগের সাধারণ সম্পাদক ও পৌর মেয়র তাজিমুল ইসলাম শামীম।
জুনাইদ আহমেদ পলক বলেন, একটি জাতির সামনে এগিয়ে যাওয়ার জন্য সবচেয়ে বড় প্রয়োজন হচ্ছে শিক্ষা ও গবেষণা। ড. ওয়াজেদ মিয়া জীবনের শেষ মুহুর্ত পর্যন্ত বিজ্ঞাণ, শিক্ষা ও গবেষণায় নিজেকে নিয়োজিত রেখেছিলেন।
তিনি আরও বলেন, তিনি (ড. ওয়াজেদ মিয়া) শ্রেষ্ঠতম বিজ্ঞানী হওয়া স্বত্বেও বাংলাদেশের মহান মুক্তিযুদ্ধ ও স্বাধীনতা অর্জনের ক্ষেত্রেও তার অবদান ছিল অপরিসীম।
পলক বলেন, ড. ওয়াজেদ মিয়া শুধু দেশবরেণ্য বিজ্ঞানীই ছিলেন না, তিনি ছিলেন সাহসী, দেশপ্রেমিক, রাজনীতিবিদ, দায়িত্বশীল স্বামী, পিতা ও তীক্ষè মেধাবী ছাত্র। তিনি ছাত্রলীগের মনোনীত প্রার্থী হিসেবে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয়ের ফজলুল হক হলের ছাত্র সংসদের সহ-সভাপতি (ভিপি) ছিলেন।
তিনি বলেন, তিনি ( ড. ওয়াজেদ মিয়া) রূপপুর পারমানবিক বিদ্যুৎকেন্দ্র নিয়ে যে স্বপ্ন দেখেছিলেন, তা আজ বাস্তবায়নের পথে।
প্রতিমন্ত্রী আরও বলেন, জাতির জন্য নি:স্বার্থভাবে কাজ করায় ড. ওয়াজেদ মিয়া আগামী প্রজন্মসহ সকলের কাছে আদর্শ ও অনুকরণীয় হয়ে থাকবেন এবং তার অবদানের জন্য মানুষ চিরকাল তাকে শ্রদ্ধার সঙ্গে স্মরণ করবে।
পরে ড. ওয়াজেদ মিয়ার আত্মার শান্তি কামনা করে বিশেষ দোয়া ও মোনাজাত করা হয়।