বাসস প্রধানমন্ত্রী-১ (দ্বিতীয় ও শেষ কিস্তি) : আপনজনদের জীবনকে হুমকির মুখে ঠেলে দেবেন না : প্রধানমন্ত্রী

36

বাসস প্রধানমন্ত্রী-১ (দ্বিতীয় ও শেষ কিস্তি)
শেখ হাসিনা-ঘরে ফেরা
আপনজনদের জীবনকে হুমকির মুখে ঠেলে দেবেন না : প্রধানমন্ত্রী

তিনি বলেন, ‘যাদের এত বিশাল বিশাল অট্টালিকা,বাড়িঘর ফ্ল্যাট সবই আছে তাদের আরো লাগবে কেন? মরলে তো সবাইকে যেতে হবে সেই কবরে। মাত্র সাড়ে তিন হাত জায়গায়। এই ধন সম্পদ কেউ সাথে নিয়ে যেতে পারবে না।এই কথাটা মানুষ কেন ভুলে যায় আমি জানি না।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা শহর গড়ে তুলতে চাই। আমাদের দেশে যারা বিত্তশালী তারা প্লট কেনেন। ভালো ভালো দৃষ্টিননন্দন বাড়ি ঘর বানান। যখন পূর্বাচল শুরু হলো তখন আমি দেখেছি, গুলশান,বারিধারায় বিশাল বিশাল অট্টালিকা যাদের তাদেরও পূর্বাচলে একটা প্লট না থাকলে নাকি ইজ্জতই থাকে না।এই রকমও কিছু কিছু মানুষের মানসিকতা আমি দেখেছি। কিন্তু যারা সত্যিকারের প্রাপ্য,তারা বঞ্চিত ছিলেন উল্লেখ করে শেখ হাসিনা বলেন,‘আমাদের সব সময় একটা প্রচেষ্টা ছিল যে কিভাবে আপনাদের বঞ্চনার হাত থেকে মুক্তি দেব। আপনারা জমি দিয়েছেন অথচ আপনারা প্লট পাবেন না এটা হতে পারে না।’
জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে পূর্বাচলে জাতির পিতার স্মৃতি স্তম্ভ নির্মানে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার কাছে একটা প্রকল্প অনুমোদন চেয়ে প্রস্তাব এসেছিল। যার অনুমোদন সরকার প্রধান দেননি বলেও অনুষ্ঠানে জানান তিনি।
তিনি বলেন,সেই ফাইলে আমি লিখে দিয়েছিলাম,এখানকার যারা আদিবাসি তারা প্লট পাবে। তারপর আমি প্রকল্পের অনুমোদন দেব। তার আগে কোন প্রকল্পের অনুমোদন দেব না এবং কিভাবে প্লট বের করবে সেটা যেন মন্ত্রনালয় বা রাজউক খুঁজে বের করে। সেই নির্দেশই আমি দিয়েছি।
শেখ হাসিনা বলেন,আমি এইটুকু চাই,বাংলাদেশের একটি মানুষও গৃহহীন থাকবে না। যেইটুকু পারি,যেভাবে পারি একটা মানুষকে একটা ঘর,একটা মাথা গোজার ঠাই সেটা আমরা করে দেব এবং প্রত্যেক ঘরেই বিদ্যুৎ থাকবে,আলো জ্বলবে। প্রতিটি পরিবারেই শিক্ষিত মানুষ থাকবে,লেখাপড়া লিখবে।
যুব সমাজকে আতœনির্ভরশীল করে গড়ে তোলার প্রত্যয়ের কথা তুলে ধরে শেখ হাসিনা বলেন, সেই লেখাপড়া শুধু কেতাবি পড়া না। সাথে সাথে ভোকেশনাল ট্রেনিং ও কারিগরি শিক্ষা নিতে হবে যেন কর্মসংস্থান হয়। শুধু বিএ এমএ পাশ করলে হবে না।
তিনি বলেন, চাকরির পেছনে ঘুরলে হবে না। নিজের পায়ে দাঁড়াতে হবে। নিজেরা যেন চাকরি দিতে পারে সেভাবে নিজেদেরকে গড়তে হবে। আমরা সেইভাবে এদেশের যুব সমাজকে গড়ে তুলতে চাই।
বাসস/এএসজি-এফএন/১৯৪০/এবিএইচ