আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে অতিরিক্ত লোক নিয়োগ না দিতে পৌর মেয়রদের প্রতি এলজিআরডি মন্ত্রীর আহবান

398

ঢাকা, ২০ এপ্রিল, ২০২১ (বাসস) : নিয়মিত কর্মচারীদের বেতন-ভাতা পরিশোধ না করে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে অতিরিক্ত লোকবল নিয়োগ না দিতে পৌর মেয়রদের প্রতি আহবান জানিয়েছেন স্থানীয় সরকার, পল্লী উন্নয়ন ও সমবায় মন্ত্রী মো. তাজুল ইসলাম।
তিনি আজ রাজধানীর সরকারী বাসভবন থেকে অনলাইনে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধ ও উন্নয়ন কার্যক্রম নিয়ে দেশের সকল মেয়রদের সঙ্গে আয়োজিত এক মতবিনিময় সভায় এ আহবান জানান।
মো. তাজুল ইসলাম বলেন, পৌরসভাগুলোতে নিয়মিত কর্মচারীদের বেতন-ভাতা সময়মত পরিশোধ না করে আউটসোর্সিংয়ের মাধ্যমে অপ্রয়োজনীয় লোক নিয়োগ দিয়ে তাদের বেতন-ভাতা দেওয়া হচ্ছে বলে অভিযোগ পাওয়া যায়।
তিনি বলেন, অতিরিক্ত কর্মচারী নিয়োগের জন্যই পৌরসভার নিয়মিত কর্মচারীদের বেতন-ভাতা মাসের পর মাস বকেয়া থাকছে। তাই এ বিষয়ে পৌর মেয়রদের আরো দায়িত্বশীল হতে হবে।
স্থানীয় সরকার মন্ত্রী বলেন, পৌর মেয়রদের আয় ও উৎপাদনমুখী এবং সেবামূলক প্রকল্প গ্রহণ করতে হবে এবং করোনাভাইরাসের মহামারীকালে সামাজিক দুরত্ব বজায় রেখে ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে সরকারের নেওয়া চলমান উন্নয়ন কর্মকান্ড অব্যাহত রাখতে হবে।
তিনি আরো বলেন, লকডাউনের সময়-সীমা যত বাড়বে, দেশের অর্থনীতির ওপর ততবেশি প্রভাব পড়বে। তাই অর্থনৈতিক কর্মকান্ড চালু না রাখার কোন বিকল্প নেই।
হাট-বাজারগুলোতে জনসমাগম কমানোর তাগিদ দিয়ে সামাজিক দুরত্ব ও স্বাস্থ্যবিধি মেনে খোলা জায়গায় কাঁচাবাজার বসানোর আহবান জানিয়ে তাজুল ইসলাম বলেন, করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে জনগণকে সম্পৃক্ত করে প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা গ্রহণ করতে হবে।
এ বিষয়ে তিনি আরো বলেন, এছাড়াও করোনাভাইরাসের সংক্রমণ প্রতিরোধে সরকার যে সকল পরিপত্র জারি করেছে সেগুলো কঠোরভাবে প্রতিপালন করতে হবে।
মন্ত্রী বলেন, নতুন প্রজন্মের নাগরিকদের সকল প্রকার অনৈতিক কার্যকলাপ থেকে বিরত রেখে যোগ্য নাগরিক হিসেবে গড়ে তুলতে জনপ্রতিনিধিদের গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব রয়েছে। যুব সমাজকে নষ্ট হতে দেওয়া যাবে না। তাদেরকে দেশ ও জাতির কল্যাণে কাজে লাগাতে হবে। আর জনপ্রতিনিধিরাই দেশে সামাজিক বিপ্লব ঘটাতে পারেন।
তিনি আরো বলেন, ধর্মের নামে কথা বলে যারা দেশে অশান্তি সৃষ্টি করার পায়তারা করছে তাদের বিরুদ্ধে জনমত গড়ে তুলে শক্ত হাতে মোকাবেলা করতে হবে।
সভায় স্থানীয় সরকার বিভাগের সিনিয়র সচিব হেলালুদ্দীন আহমদ ও মন্ত্রণালয়ের উর্ধ্বতন কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন।