যুক্তরাষ্ট্র ও ন্যাটো বাহিনী প্রত্যাহারের পরেও আফগানিস্তানে জাতিসংঘ মিশন কার্যক্রম অব্যাহত থাকবে

21

জাতিসংঘ, যুক্তরাষ্ট্র, ১৬ এপ্রিল, ২০২১(বাসস ডেস্ক): জাতিসংঘ বৃহস্পতিবার বলেছে চলতি বছরের শেষ নাগাদ আফগানিস্তান থেকে যুক্তরাষ্ট্র এবং ন্যাটো সৈন্য প্রত্যাহার সত্ত্বেও দেশটিতে জাতিসংঘ তাদের রাজনৈতিক এবং মানবিক সহায়তা মিশন অব্যাহত রাখবে।
জাতিসংঘ মহাসচিবের মুখপাত্র স্টিফেন দুজারিক বলেছেন, ‘অবশ্যই এটি সুস্পস্ট’ যে সৈন্য প্রত্যাহারের কারণে দেশটিতে সামগ্রিকভাবে প্রভাব পড়বে। এর প্রেক্ষিতে দেশটিতে জাতিসংঘ মিশনের ভবিষ্যৎ নিয়ে প্রশ্ন দেখা দিয়েছে।
তিনি বলেন, ‘পরিস্থিতির ওপর আমাদের পর্যবেক্ষণ অব্যাহত রাখবো তবে আফগানিস্তানে আমাদের কার্যক্রমও বজায় থাকবে।’
‘জাতিসংঘ অনেক দীর্ঘ সময় ধরে আফগানিস্তানে মানব উন্নয়নে কাজ করে আসছে এবং আফগান জনগণের সহায়তায় তা অব্যাহত থাকবে’ এ কথা উল্লেখ করে তিনি বলেন সংস্থা ‘সরেজমিন পরিস্থিতি অনুযায়ী সিদ্ধান্ত’ নেবে।
আফগানিস্তানে জাতিসংঘের সহায়তা মিশনে (ইউএনএএমএ) ছোট আকারে রাজনৈতিক কার্যক্রম পরিচালনায় প্রায় ১,২০০ কর্মী রয়েছে, এদের বেশীরভাগই আফগান নাগরিক, এদের মধ্যে কোন শান্তিরক্ষী নেই। জাতিসংঘের সকল ইউনিট মিলিয়ে প্রায় ৪ হাজার লোক এখানে কর্মরত রয়েছেন, এদের ৭৫ শতাংশই আফগান নাগরিক।
আফগানিস্তানে জাতিসংঘের দুইজন দূত রয়েছেন, রাজনৈতিক সংঘাত পরিস্থিতি থেকে উত্তরণে সহায়তা দিতে গত মার্চে কানাডার ডিবোরাহ লিওনস ইউএনএএমএ প্রধান হিসেবে এবং ফ্রান্সের কূটনীতিক জাঁ আর্নাউটকে নিয়োগ দেয়া হয়েছে।
মার্কিন প্রেসিডেন্ট জো বাইডেন বুধবার আফগানিস্তান থেকে শর্তবিহীন সর্বশেষ মার্কিন সৈন্য প্রত্যাহারের সময়সীমা ১১ সেপ্টেম্বর ঘোষণা করেছেন। এই প্রত্যাহার শুরু হবে পহেলা মে থেকে।
আফগানিস্তানে ন্যাটো বাহিনীর ৯,৬০০ সৈন্যের মধ্যে পেন্টাগনের ২,৫০০ সৈন্য রয়েছে, এই সংখ্যা আগে ১ লাখের বেশী ছিল, একই সময়ে এই সকল সৈন্য প্রত্যাহার করা হবে।