বাসস দেশ-২০ (লিড) : নাটোরে বাস-লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৪ জন নিহত

587

বাসস দেশ-২০ (লিড)
সড়ক দুর্ঘটনা-নিহত
নাটোরে বাস-লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষে ১৪ জন নিহত
নাটোর, ২৫ আগস্ট, ২০১৮ (বাসস) : নাটোর-পাবনা মহাসড়কে জেলার লালপুর উপজেলার কদিমচিলান এলাকায় আজ বাস ও লেগুনার মুখোমুখি সংঘর্ষে এক পরিবারের তিনজনসহ ১৪ জন নিহত এবং অন্তত ২৫ জন আহত হয়েছেন।
শনিবার বিকেলে এই দুর্ঘটনা ঘটে। এতে ঘটনাস্থলেই ১০ জন এবং পরে হাসপাতালে আরো ৪ জন মারা যায়।
অতিরিক্ত জেলা প্রশাসক (সার্বিক) মো. রাজ্জাকুল ইসলাম দুর্ঘটনাস্থল পরিদর্শন শেষে জানান, ঘটনা তদন্তে জেলা প্রশাসনের পক্ষ থেকে অতিরিক্ত জেলা ম্যাজিস্ট্রেট মো. সাইদুজ্জামানকে প্রধান করে তিনসদস্য বিশিষ্ট তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে।
এছাড়া নিহতের প্রত্যেক পরিবারকে ২০ হাজার এবং আহতদের জন্য ১০ হাজার টাকা করে অনুদান দেয়া হবে বলে জানান তিনি।
নিহত ১৪ জনের মধ্যে যাদের পরিচয় পাওয়া গেছে তারা হলেন-লেগুনার যাত্রী পাবনা জেলার ঈশ^রদী উপজেলার মুলাডুলি শ্মশানপাড়ার মিন্টু রোজারিও’র স্ত্রী আদরী বিশ^াস (৩৫), তার ছেলে প্রত্যয় বিশ^াস (১২) ও ১০ মাস বয়সী শিশু মেয়ে স্বপ্না বিশ^াস, লেগুনার চালক নীলফামারী জেলার সৈয়দপুরের আব্দুর রহিম (২৮), বড়াইগ্রামের নারায়ণপুর গ্রামের আবু তাহেরের স্ত্রী রজুফা খাতুন (৫০), রুপচাঁদের স্ত্রী শেফালী খাতুন (৩৫) ও জামাইদিঘা গ্রামের নুরফেল সরদারের স্ত্রী লগেনা বেগম (৫০), টাঙ্গাইলের গোপালপুরের বাসিন্দা আর আর পি ফিড কোম্পানির কর্মকর্তা রোকন উদ্দিন (৫৫), পাবনা জেলার ঈশ^রদী উপজেলার দাশুড়িয়া মীর কামারী এলাকার সালামতউল্লাহর স্ত্রী শাপলা খাতুন (২১)।
নিহত অপর পাঁচজনের পরিচয় এখনো পাওয়া যায়নি। মরদেহগুলো বনপাড়া হাইওয়ে থানায় রাখা হয়েছে।
বনপাড়া হাইওয়ে থানার ওসি জিএম শামসুন নুর জানান, বিকেল ৪টার দিকে কদিমচিলান সাদিয়া ফিলিং স্টেশনের সামনে পাবনা থেকে বগুড়াগামী চ্যালেঞ্জার পরিবহনের একটি বাসের সঙ্গে বিপরীত দিক থেকে আসা একটি যাত্রীবাহী লেগুনা স্মরণ এন্টারপ্রাইজের মুখোমুখি সংঘর্ষ হয়। এতে ঘটনাস্থলেই ১০ জনসহ মোট ১৪ জন নিহত ও আরো প্রায় ২৫ জন আহত হন।
তাদের মধ্যে ৫জন মহিলা, দুজন শিশু ও বাকিরা পুরুষ। অপর আহতদের বনপাড়ার বিভিন্ন ক্লিনিকে ভর্তি করা হয়েছে।
বাসস/সংবাদদাতা/এমএমবি/২০৩৪/কেজিএ