বঙ্গবন্ধুর নির্দেশে পিরোজপুরে মার্চ ১০ গঠিত হয়েছিল মহকুমা সংগ্রাম পরিষদ

99

পিরোজপুর, ৯ মার্চ, ২০২১ (বাসস) : ১৯৭১ সালের ৭ই মার্চ ঢাকার রেসকোর্স ময়দানে ঐতিহাসিক ভাষণে জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান নির্দেশ দিয়েছিলেন আওয়ামী লীগের নেতৃত্বে সংগ্রাম পরিষদ গড়ে তোলার।
জাতীয় পরিষদ ও প্রাদেশিক পরিষদের সদস্যবৃন্দ ৯ মার্চ পিরোজপুরে ফিরে আসেন। তারা মহকুমা আওয়ামী লীগের সভাপতি ও জাতীয় পরিষদের সদস্য এডভোকেট এনায়েত হোসেন খানের পাড়েরহাট সড়কের বাসভবনে ১০ মার্চ এক সভায় বসে মহকুমা, ৮ টি থানা ও ১ টি পৌরসভার সংগ্রাম পরিষদ গঠন করেন।
মহকুমা সংগ্রাম পরিষদের আহবায়ক নির্বাচিত হন এডভোকেট এনায়েত হোসেন খান এমএনএ। মহকুমা সংগ্রাম পরিষদের অন্যান্য সদস্যরা হলেন- এডভোকেট সামসুল হক এমএনএ, ডা. আব্দুল হাই এমপি, এ ডা. ক্ষিতিশ চন্দ্র মন্ডল এমপিএ মো. নুরুল ইসলাম ভান্ডারি এমপিএ, মো. বদিউল আলম চৌধুরী ও আজিজুর রহমান সিকদার।
সংগ্রাম পরিষদ গঠন শেষে পাড়েরহাট সড়কে হাজার-হাজার ছাত্র-জনতার করতালী ও শ্লোগানের মধ্যে এনায়েত হোসেন খান মহাকুমা থানা ও পৌর সংগ্রাম কমিটির নেতৃবৃন্দের নাম ঘোষণা করেন। এই সংগ্রাম কমিটির নেতৃত্বেই পিরোজপুরে শুরু হয়েছিল মুক্তিযুদ্ধের প্রাথমিক প্রস্তুতি যা ২৬ মার্চ বঙ্গবন্ধুর আনুষ্ঠানিক স্বাধীনতা ঘোষণার সাথে-সাথে রূপ নেয় সশস্ত্র মুক্তিযুদ্ধের।
সংগ্রাম কমিটি গঠনের সময়ের স্মৃতিচারণ করে সে সময়ের প্রাদেশিক পরিষদ সদস্য ডা. ক্ষিতিশ চন্দ্র মন্ডল ২০১৯ সালে এক স্মৃতিচারণে বলেছিলেন- আমরা ৭ই মার্চের জনসভা শেষে রাতে বঙ্গবন্ধুর সাথে দেখা করার চেষ্টা করেও তাঁর বাসভবনের সামনে হাজার-হাজার জনতার উপস্থিতির কারণে সাক্ষাত করতে পারিনি। পরদিন বিকেলে বঙ্গবন্ধুর সাথে সাক্ষাত হলে তিনি আমাদের সংগ্রাম কমিটি গঠনের নির্দেশ দানের পাশাপাশি আরো কিছু প্রস্তুতি নেয়ার নির্দেশ দেন। পিরোজপুরে সংগ্রাম কমিটি গঠনই ছিল এ মহকুমার মুক্তিযুদ্ধের সুচনাপর্ব।