বাসস দেশ-২৬ : বঙ্গবন্ধু মৎস্য খাতকে অর্থনীতির দ্বিতীয় উৎস হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন : নারায়ণ চন্দ্র চন্দ

602

বাসস দেশ-২৬
নারায়ন-শোক-আলোচনা
বঙ্গবন্ধু মৎস্য খাতকে অর্থনীতির দ্বিতীয় উৎস হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন : নারায়ণ চন্দ্র চন্দ
ঢাকা, ১৫ আগস্ট, ২০১৮ (বাসস) : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী নারায়ণ চন্দ্র চন্দ বলেছেন, জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান দেশের মৎস্য খাতকে অর্থনীতির দ্বিতীয় উৎস হিসেবে ঘোষণা দিয়েছিলেন বলেই আজ আমরা মৎস্য খাতে স্বয়ম্ভরতা অর্জন করতে সক্ষম হয়েছি।
জাতীয় শোক দিবস ও জাতির পিতা বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের ৪৩তম শাহাদাত বার্ষিকী উপলক্ষে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের উদ্যোগে আয়োজিত এক আলোচনাসভা ও দোয়া মাহফিলে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।
আজ মৎস্য ভবনের সম্মেলন কক্ষে আয়োজিত এই অনুষ্ঠানে মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ সচিব রইছউল আলম মন্ডল সভাপতিত্ব করেন। অনুষ্ঠানে অন্যান্যের মধ্যে বিএফডিসির চেয়ারম্যান দিলদার আহমদ, মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব অরুণ কুমার মালাকার, মৎস অধিদপ্তরের মহাপরিচালক গুলজার হোসেন ও প্রাণিসম্পর অধিদফতরের মহাপরিচালক হীরেশ রঞ্জন ভৌমিক বক্তৃতা করেন।
মৎস্য ও প্রাণিসম্পদমন্ত্রী বিস্ময় প্রকাশ করে বলেন, ‘এটা অভাবনীয় যে, মাত্র সাড়ে তিন বছরের শাসনামলে দেশের স্বার্থে বঙ্গবন্ধু কীভাবে অসংখ্য পদক্ষেপ গ্রহণ করেছেন। ফলে দেশের যেখানে যাই, সেখানে শুধু তাঁরই ছোয়া খুঁজে পাই। তাই দেশের প্রতিটি উন্নয়ন কাজে আমরা ১৯৭২, ’৭৩ ও ’৭৪ সালের বিভিন্ন আইন ও অধ্যাদেশই দেখতে পাই। বঙ্গবন্ধুর এই অবদানের বিনিময়স্বরূপ প্রতিটি সরকারি কর্মচারীরই উচিত তাঁর কন্যা শেখ হাসিনার সঙ্গে থেকে সুশৃঙ্খল জাতি গঠনে সক্রিয় ভূমিকা পালন করা। অন্যথায় সরকারের উন্নয়ন কাজসমুহ ব্যাহত হতে পারে।’
মন্ত্রী আরো বলেন, আমরা আবার মাছে-ভাতে ও দুধে-ভাতে বাঙ্গালির হারানো গৌরব পুনরুদ্ধার করতে যাচ্ছি। আমরা দুধ ও ডিম উৎপাদনে যথাক্রমে ৬৫% ও ৮৫% অগ্রগতি অর্জন করেছি এবং শিগগিরই স্বয়ম্ভরতা অর্জন করবো।
এর আগে মন্ত্রণালয়ের কর্মকর্তা-কর্মচারীরা বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে পুষ্পস্তবক অর্পণ করেন।
বাসস/সবি/এমএন/২০৫০/-এবিএইচ