বাজিস-১২ : ভোলায় বিরল প্রজাতির রাসেল ভাইপার সাপ উদ্ধার

2257

বাজিস-১২
রাসেল-ভাইপার
ভোলায় বিরল প্রজাতির রাসেল ভাইপার সাপ উদ্ধার
ভোলা, ১ ডিসেম্বর, ২০২০ (বাসস) : জেলার সদর উপজেলার ধনীয়া ইউনিয়ন থেকে বিষাক্ত রাসেল ভাইপার (চন্দ্রবোড়া) সাপ উদ্ধার করা হয়েছে। সোমবার রাতে তুলাতুলী মেঘনা পাড় এলাকা থেকে সাপটি উদ্ধার করে স্থানীয়রা। পরে বন বিভাগকে খবর দিলে তারা উদ্ধার করে নিয়ে যায় সাপটি। বিরল প্রজাতীর বিলুপ্তির পথে সাপটি লম্বায় প্রায় ৪ ফুট। দেশের উত্তরাঞ্চলের ভারত সীমান্তবর্তী এলাকায় এটি বেশি দেখা যায়।
বন বিভাগের ভোলা সদর উপজেলা রেঞ্জ কর্মকর্তা মো. কামরুল ইসলাম বাসস’কে জানান, স্থানীয়রা প্রথমে অজগর ভেবে সাপটি আটক করে। এর টিকা এখনো আবিস্কার না হওয়াতে এটাকে বেশ বিষাক্তই বলা যায়। এর ছোবলে মানুষের মৃত্যু হতে পারে। উদ্ধারকৃত সাপটি প্রাপ্তবয়স্ক। এর আগে গত ২ বছরে সদরের রাজাপুর, ইলিশা ও তুলাতুলী থেকে ৭ থেকে ৮টি চন্দ্রবোড়া সাপ উদ্ধার হয়েছিলো। সাপটি গহীন অরণ্যে অবমুক্ত করা হবে বলে জানান তিনি।
জানা যায়, চন্দ্রবোড়া বা উলু বোড়া ভাইপারিডি পরিবারভুক্ত একটি অন্যতম বিষধর সাপ রাসেল ভাইপার। এই সাপ সবচেয়ে বিষাক্ত ও এর অসহিষ্ণু ব্যবহার ও লম্বা বহির্গামী বিষদাঁতের জন্য অনেক বেশি লোক দংশিত হন। বিষক্রিয়ায় রক্ত জমা বন্ধ হয়ে যায়। ফলে অত্যধিক রক্তক্ষরণে অনেক দীর্ঘ যন্ত্রণার পর মৃত্যু হয়।
চন্দ্রবোড়ার দেহ মোটাসোটা, লেজ ছোট ও সরু। প্রাপ্তবয়স্ক সাপের দেহের দৈর্ঘ্য সাধারণত এক মিটার; দেহের সর্বোচ্চ দৈর্ঘ্য ১ দশমিক ৮ মিটার পর্যন্ত হয়। চন্দ্রবোড়া নিচু জমির ঘাসযুক্ত উন্মুক্ত পরিবেশে এবং কিছুটা শুষ্ক পরিবেশে বাস করে। এরা নিশাচর, এরা খাদ্য হিসেবে ইঁদুর, ছোট পাখি, টিকটিকি ও ব্যাঙ ভক্ষণ করে। এরা প্রচন্ড আক্রমনাত্বক হয়ে থাকে। পৃথিবীতে প্রতিবছর যত মানুষ সাপের কামড়ে মারা যায়, তার উল্লেখযোগ্য একটি অংশ এই চন্দ্রবোড়ার কামড়ে মারা যায়। এদের বিষদাঁত বিশ্বের দ্বিতীয় সর্বোচ্চ।
চন্দ্রবোড়া সাপ পশ্চিমবঙ্গ ও বাংলাদেশের দুর্লভ সাপ। নদীয়া বর্ধমান ও উত্তর চব্বিশ পরগনা বর্তমানে বাঁকুড়া জেলার গ্রাম অঞ্চলে এই সাপ ভয়ের অন্যতম কারণ। বাংলাদেশের রাজশাহী অঞ্চলে এ সাপ বেশি পাওয়া যায়। রাসেল ভাইপার ভারত বাংলাদেশে মহাবিপন্ন প্রাণীর তালিকায় রয়েছে। অন্যান্য সাপ মানুষকে এড়িয়ে চলার চেষ্টা করলেও এ সাপটি স্বভাব ঠিক তার উল্টো। আক্রমণের ক্ষিপ্র গতি ও বিষের তীব্রতার কারণে ‘কিলিংমেশিন’ হিসেবে বদনাম রয়েছে সাপটির।
নদীয়া জেলাসহ পশ্চিমবঙ্গের বিভিন্ন অংশে এছাড়াও ভারত, পাকিস্তান, নেপাল, ভুটান, শ্রীলংকা, চীনের দক্ষিণাংশ, তাইওয়ান, থাইল্যান্ড, বার্মা ও ইন্দোনেশিয়ায় পাওয়া যায়। সাপ সাধারণত ডিম পাড়ে এবং ডিম ফুটে বাচ্চা হয়। তবে চন্দ্রবোড়া সাপ ডিম পাড়ার পরিবর্তে সরাসরি বাচ্চা দেয়। এরা বছরের যে কোনো সময় প্রজনন করে। একটি স্ত্রী সাপ গর্ভধারণ শেষে ২০ থেকে ৪০টি বাচ্চা দেয়। তবে কোনো কোনো চন্দ্রবোড়া সাপের ৭৫টি পর্যন্ত বাচ্চা দেয়ার রেকর্ড আছে।
২০০৯ সালে এশিয়াটিক সোসাইটি কর্তৃক প্রকাশিত বাংলাদেশ উদ্ভিদ ও প্রাণী জ্ঞানকোষে এটিকে বাংলাদেশে মহাবিপন্ন বর্ণনা করা হয়েছে। বাংলাদেশের ২০১২ সালের বন্যপ্রাণী (সংরক্ষণ ও নিরাপত্তা) আইনে এ প্রজাতিটি সংরক্ষিত।
বাসস/এইচএএম/এনডি/১৬৫৫/কেজিএ