দেশের পার্বত্য এলাকায় মাছ চাষে আমূল পরিবর্তন আনা হবে : শ ম রেজাউল

357

রাঙ্গামাটি, ৩১ অক্টোবর, ২০২০ (বাসস) : মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রী শ ম রেজাউল করিম বলেছেন, পার্বত্য অঞ্চলে মাছ উৎপাদনে আমূল পরিবর্তন আনা হবে।
তিনি বলেন, “বাংলাদেশের মৎস্য উৎপাদনে বৈপ্লবিক পরিবর্তন এসেছে। এ পরিবর্তন শুধু দেশেই নয়, বিদেশেও আমাদের সম্মান বৃদ্ধি করেছে। প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার সফল নেতৃত্বে মিঠাপানির মাছ এবং ইলিশ উৎপাদনে অতীতের সকল রেকর্ড ভঙ্গ করে বাংলাদেশ এগিয়ে চলছে।”
মন্ত্রী আরো বলেন, “প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনার নির্দেশনা অনুযায়ী দেশে বদ্ধ জলাশয় থেকে শুরু করে ছোট খাল, হাওর-বাওর, লেক, বিল সর্বত্রই মাছের চাষ করা হবে।”
শ ম রেজাউল করিম আজ রাঙ্গামাটিতে বাংলাদেশ মৎস্য উন্নয়ন কর্পোরেশন (বিএফডিসি)’র কাপ্তাই হ্রদ মৎস্য উন্নয়ন ও বিপনন কেন্দ্রে কাপ্তাই হ্রদে বিএফডিসি’র অবহিতকরণ কার্যক্রম সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে এ কথা বলেন।
বিএফডিসির চেয়ারম্যান কাজী হাসান আহমদের সভাপতিত্বে সভায় বিশেষ অতিথি ছিলেন মৎস্য সচিব রওনক মাহমুদ।
সভায় অন্যান্যের মধ্যে উপস্থিত ছিলেন মৎস্য ও প্রাণিসম্পদ মন্ত্রণালয়ের অতিরিক্ত সচিব মো. তৌফিকুল আরিফ, মৎস্য অধিদপ্তরের মহাপরিচালক কাজী শামস আফরোজ, বাংলাদেশ মৎস্য গবেষনা ইনসিইটউটের মহাপরিচালক ড. ইয়াহিয়া মাহমুদ, বিএফডিসির পরিচালক রশিদ আহমদ ও জেলা প্রশাসক এ কে এম মামুনুর রশিদ।
শ ম রেজাউল করিম বলেন, মৎস্য ব্যবস্থাপনাকে কিভাবে আরো উন্নত করা যায়, সেটা সরেজমিনে দেখার জন্য আমরা দেশের বিভিন্ন জায়গায় যাচ্ছি। কাপ্তাই হ্রদে মৎস্য আহরণ বন্ধকালে অতীতে কখনও মৎস্যজীবীদের সুযোগ-সুবিধা দেয়া হতো না। এ বছর লেকে মৎস্য আহরণ বন্ধকালে মৎসজীবীদের জন্য পর্যাপ্ত খাদ্য সহায়তা দেয়া হয়েছে। আগামীতেও তা অব্যাহত থাকবে।
সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের জবাবে তিনি বলেন, “আমরা সারাদেশে খাঁচায় মাছ চাষকে উৎসাহিত করেছি। আর ক্রিক ব্যবস্থাপনায় মৎস্য চাষ নিয়ে ইতোমধ্যে একনেকে প্রকল্প পাশ হয়েছে।”