বাসস দেশ-৪৫ : রাহাত খানের সাহিত্য কর্ম নতুন প্রজন্মের মননশীলতা বিকাশে উজ্জীবিত করবে : স্মরণ সভায় বক্তারা

243

বাসস দেশ-৪৫
রাহাত-খান- স্মরণ সভা
রাহাত খানের সাহিত্য কর্ম নতুন প্রজন্মের মননশীলতা বিকাশে উজ্জীবিত করবে : স্মরণ সভায় বক্তারা
ঢাকা, ৮ অক্টোবর, ২০২০ (বাসস): একুশে পদকপ্রাপ্ত খ্যাতিমান সাংবাদিক ও কথা সাহিত্যিক রাহাত খানের সাহিত্য কর্ম নতুন রাহাত খানের সাহিত্য কর্ম নতুন প্রজন্মের মননশীলতা বিকাশে উজ্জীবিত করবে। তাই তাদের মত গুণীজনদের নিয়ে বেশি বেশি আলোচনা উচিত।
আজ বিকেলে জাতীয় প্রেসক্লাবে প্রয়াত রাহাত খানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে এক স্মরণ সভায় বক্তারা এ কথা বলেন।
জাতীয় প্রেসক্লাবের সহযোগিতায় সাহিত্য সংগঠন খেয়া ও প্রকাশনা প্রতিষ্ঠান আবিষ্কারের উদ্যোগে এই আলোচনা সভায় সভাপতিত্ব করেন মরহুমের স্ত্রী অপর্ণা খান।
সাংবাদিক দেলওয়ার হাসানের পরিচালনায় অনুষ্ঠিত স্মরণ সভায় বক্তব্য রাখেন বিএফইউজে’র সাবেক সভাপতি মঞ্জুরুল আহসান বুলবুল, জাতীয় প্রেসক্লাবের সাধারণ সম্পাদক ফরিদা ইয়াসমিন, বিশিষ্ট সাংবাদিক ও লেখক হারুন হাবীব, বাংলাদেশ ডায়াবেটিস সমিতির সভাপতি অধ্যাপক ডা.এ.কে আজাদ, সাংবাদিক নেতা কুদ্দুস আফ্রাদ,আতাউর রহমান, কবি লিলি হক, রেজাউদ্দিন স্টালিন সাংবাদিক মাহবুুবুর রহমান প্রমুখ।
স্মরণ সভায় রাহাত খানের প্রতি শ্রদ্ধা জানিয়ে বক্তারা আরো বলেন, রাহাত খান ১৯৪০ সালের ১৯ ডিসেম্বর কিশোরগঞ্জ জেলার তাড়াইল উপজেলার পূর্ব জাওয়ার গ্রামের খান পরিবারের জন্মগ্রহণ করেন। তিনি ১৯৬১ সালে ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় থেকে বাংলায় ¯œাতক ডিগ্রি লাভ করেন। শিক্ষা জীবন শেষে তিনি ময়মনসিংহ জেলার নাসিরাবাদ কলেজ, জগন্নাথ বিশ্ববিদ্যালয় কলেজ ও চট্টগ্রাম সরকারি কলেজসহ বিভিন্ন শিক্ষা প্রতিষ্ঠানে অধ্যাপনা করেন। ১৯৬৯ সালে তিনি দৈনিক সংবাদ পত্রিকায় সাংবাদিকতা শুরু করেন। পরবর্তীতে দৈনিক ইত্তেফাকের ভারপ্রাপ্ত সম্পাদক ও সম্পাদক হিসেবে কর্মরত ছিলেন। তিনি জাতীয় বার্তা সংস্থা বাংলাদেশ সংবাদ সংস্থা (বাসস) পরিচালনা বোর্ডের চেয়ারম্যান হিসেবেও দায়িত্ব পালন করেছেন। রাহাত খান ১৯৯৬ সালে বাংলাদেশ সরকার কর্তৃক প্রদত্ত দ্বিতীয় সর্বোচ্চ বেসামরিক সম্মাননা একুশে পদকে ভূষিত হন। এ ছাড়াও তিনি বাংলা একাডেমি সাহিত্য পুরস্কার (১৯৭৩), সুহৃদ সাহিত্য পুরস্কার (১৯৭৫), সুফী মোতাহার হোসেন পুরস্কার (১৯৭৯), আবুল মনসুর আহমদ স্মৃতি পুরস্কার (১৯৮০), হুমায়ুন কাদির স্মৃতি পুরস্কার (১৯৮২), ত্রয়ী সাহিত্য পুরস্কার (১৯৮৮) এবং দ্বিতীয় সর্বোচ্চ রাষ্ট্রীয় একুশে পদক (১৯৯৬) পেয়েছেন।
বর্ণাঢ্য সাংবাদিকতা জীবনে রাহাত খান কথাশিল্প, ছোটগল্প, প্রবন্ধ-নিবন্ধ ও উপন্যাসের নিপুণ কারিগর হয়ে উঠেছেন। ১৯৭২ সালে তার প্রথম গল্পগ্রন্থ অনিশ্চিত লোকালয় প্রকাশিত হয়। তার পরবর্তী উপন্যাস ও গল্পগ্রন্থের মধ্যে উল্লেখযোগ্য হচ্ছে অমল ধবল চাকরি, ছায়া দম্পতি, শহর, হে শূন্যতা, হে অনন্তের পাখি, মধ্য মাঠের খোলোয়াড়,এক প্রিয়দর্শিনী, মন্ত্রিসভার পতন, দুই নারী, কোলাহল ইত্যাদি।
বাসস/এএসজি/এমএআর/২২৪৮/আরজি