শেরপুরে ২ লাখ শিশুকে খাওয়ানো হবে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল

218

শেরপুর, ১ অক্টোবর, ২০২০ (বাসস) : অপুষ্টিজনিত অন্ধত্ব নিবারণ, রাতকানা রোগ নিরসন, ডায়রিয়ার জটিলতা কমানো এবং শিশুমৃত্যুহার কমাতে রোগ প্রতিরোধ ক্ষমতা বৃদ্ধির লক্ষ্যে শেরপুর জেলায় এবার ২ লাখ ২ হাজার ৫৩৬ জন শিশুকে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে।
তন্মধ্যে ৬-১১ মাস বয়সী ২২ হাজার ৮২৪ শিশুকে ১ লাখ আইইউ মাত্রার একটি করে নীল রংয়ের এবং ১২-৫৯ মাস বয়সী ১ লাখ ৭৯ হাজার ৭১২ শিশুকে ২ লাখ আইইউ মাত্রার একটি করে লাল রংয়ের ভিাটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়ানো হবে। এজন্য জেলায় ১ হাজার ৩৪৬টি কেন্দ্র স্থাপন করা হয়েছে। যাতে দায়িত্ব পালনের জন্য ১ হাজার ৭৩১ জন স্বাস্থ্যকর্মী ছাড়াও ২ হাজার ৬৯২ জন স্বেচ্ছাসেবক নিয়োগ করা হয়েছে। আগামী ৪ অক্টোবর থেকে ১৭ অক্টোবর পর্যন্ত পক্ষকালব্যাপী সারাদেশে ভিাটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হবে।
আজ ১ অক্টোবর বৃহস্পতিবার সিভিল সার্জন কার্যালয়ের সভাকক্ষে জাতীয় ভিটামিন ‘ এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন উপলক্ষে শেরপুর জেলায় সাংবাদিকদের নিয়ে এক ওরিয়েন্টেশন কর্মশালায় এমন তথ্য জানান সিভিল সার্জন ডা. আবুল কাশেম মো. আনওয়ারুর রউফ।
কর্মশালায় রিসোর্স পারসন হিসেবে বক্তব্য রাখেন জেলা তথ্য কর্মকর্তা তাহলিমা জান্নাত ও মেডিকেল অফিসার ডা. আনোয়ার হোসেন। এসময় অন্যান্যের মাঝে প্রেসক্লাবের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি জিএম আজফার বাবুল, সাধারণ সম্পাদক মো. মেরাজ উদ্দিন, সাংবাদিক হাকিম বাবুল, সঞ্জিব চন্দ বিল্টু, জিএইচ হান্নান, মারুফুর রহমান, শহীদুল ইসলাম, নুর-ই আলম চঞ্চল প্রমুখ বক্তব্য রাখেন। কোন শিশু যাতে ভিটামিন ‘এ’ ক্যাপসুল খাওয়া থেকে বাদ না পড়ে এজন্য প্রচারণার গুরুত্ব তুলে ধরে সিভিল সার্জন ক্যাম্পেইন সফল করতে সাংবাদিকদের সহায়তা কামনা করেন।
তিনি জানান, প্রতিবছর একদিনে ভিটামিন ‘এ’ প্লাস ক্যাম্পেইন করা হলেও এবার করোনা সংক্রমণের কারণে যাতে কেন্দ্রগুলোতে ভীড় বেশী না হয় সেজন্য স্বাস্থ্যবিধি মেনে পক্ষকালব্যাপী ক্যাম্পেইন অনুষ্ঠিত হবে।