জয়পুরহাটে পেঁয়াজের বাজার মনিটরিং জোরদার প্রশাসনের

405

জয়পুরহাট, ১৯ সেপ্টেম্বর, ২০২০ (বাসস) : পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি রোধ কল্পে স্থাীনয় প্রশাসনের বাজার মনিটরিং জোরদার ও টিসিবি’র পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করায় বর্তমানে জয়পুরহাটের হাটবাজার গুলোতে পেঁয়াজের দাম স্থিতিশীল পর্যায়ে রয়েছে।
জেলা প্রশাসক মো: শরীফুল ইসলাম জানান, ভারত থেকে পেঁয়াজ রফতানী বন্ধ হওয়ার খবরে সারাদেশের ন্যায় জয়পুরহাটের খুচরা বাজারগুলোতে বিরুপ প্রভাব পড়ে। দেশি ও ভারতীয় পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি রোধ করতে সরকারের বাণিজ্য মন্ত্রণালয়ের দিক নির্দেশনায় বাজার মনিটরিং কার্যক্রম জোরদার করা হয়। যাতে অসাদু পেঁয়াজ ব্যবসায়ীরা কৃত্তিম সংকট সৃষ্টি করতে না পারে। জেলা প্রশাসনের নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট ছাড়াও উপজেলা পর্যায়ে উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তারা বাজার মনিটরিং জোরদার করেছেন। বাজার মনিটরিংয়ের ধারাবাহিকতায় সম্প্রতি কালাই উপজেলার বিভিন্ন হাট বাজার মনিটরিং করেন উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা ও নির্বাহী ম্যাজিষ্ট্রেট মো: মোবারক হোসেন পারভেজ। এ সময় পুনট বাজারে অভিযান চালিয়ে পেঁয়াজের দাম বেশি নেওয়ায় ভোক্তা অধিকার আইনে ও ট্রেড লাইসেন্স না থাকায় ১৬ টি প্রতিষ্ঠানের ১৪ হাজার ২শ টাকা জরিমানা করা হয়। এ অভিযান অব্যাহত থাকবে বলেও জানান তিনি। বাজার স্বাভাবিক রাখতে জেলায় ১০ জন ডিলারের মাধ্যমে গত রোববার থেকে ৩০ টাকা কেজি দরে পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করেছে ট্রেডিং কর্পোরেশন অব বাংলাদেশ (টিসিবি)। স্থানীয় টিসিবি’র ডিলার মুক্তা ট্রেডাসের স্বত্বাধিকারী জগন্নাথ সাহা বলেন, প্রতিদিন গড়ে ৩০০ কেজি পেঁয়াজ আমরা বিক্রি করছি। একজনকে ১ কেজি করে পেঁয়াজ দেওয়া হচ্ছে। অপরদিকে, প্রশাসনের বাজার মনিটরিং জোরদার করা ও টিসিবি পেঁয়াজ বিক্রি শুরু করায় বাজারে পেঁয়াজের মূল্য বৃদ্ধি স্থিতিশীল রয়েছে। বর্তমান বাজারে ভারতীয় পেঁয়াজ ৭০ টাকা থেকে কমে ৬০/৬৫ টাকা কেজি এবং দেশি পেঁয়াজ বিক্রি হচ্ছে ১০০ টাকা থেকে কমে ৮৫/৯০ টাকা কেজি। এদিকে ভারত পেঁয়াজ রফতানি বন্ধ করে দেওয়ার খবর ছড়িয়ে পড়ার সাথে সাথে খুচরা বাজারে বিরুপ প্রভাব পড়তে শুরু করে। জেলা শহরের মাছ বাজারের খুচরা বিক্রেতা এরশাদ আলী, লুৎফর রহমান জানান, ভারত থেকে পেঁয়াজ না আসার অজুহাত দেখিয়ে স্থানীয় পাইকারী ব্যবসায়ীরা দাম বাড়ানোর ফলে আমাদেরকেও দাম বাড়াতে হয়েছে।