দক্ষিণ-পশ্চিামাঞ্চলের ৪ জেলায় পাটের আবাদ হয়েছে ৩৬ হাজার ৪০৫ হেক্টর জমিতে

390

নড়াইল, ১৪ সেপ্টেম্বর, ২০২০ (বাসস) : চলতি মওসুমে দেশের দক্ষিণ-পশ্চিামাঞ্চলের ৪ জেলায় পাটের আবাদ হয়েছে ৩৬ হাজার ৪০৫ হেক্টর জমিতে।আবাদকৃত জমিতে ৪লাখ বেল পাট উৎপাদনের সম্ভাবনা রয়েছে বলে কৃষি অফিস সূত্রে জানা গেছে। এ চার জেলায় পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ৩৬ হাজার ৯শ’৩৯ হেক্টর জমিতে।লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৫শ’৩৪ হেক্টর কম জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে বলে জানালেন কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর খুলনা আঞ্চলিক কার্যালয়ের উপ-সহকারি কৃষি কর্মকর্তা ফয়েজ আহমেদ।
খুলনা আঞ্চলিক কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর সূত্রে জানা গেছে,এ অঞ্চলের চার জেলার মধ্যে সবচেয়ে বেশি পাটের আবাদ হয়েছে নড়াইল জেলায়।চলতি মওসুমে নড়াইল জেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩শ’৬৫ হেক্টর বেশি জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে।এ জেলায় পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ২১ হাজার ৯শ’১০ হেক্টর জমিতে।চাষ হয়েছে ২২হাজার ২শ’৭৫ হেক্টর জমিতে।এছাড়া খুলনা জেলায় পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১হাজার ৫শ’৬০ হেক্টর জমিতে।পাট চাষ হয়েছে ১হাজার ৩শ’ ৬২ হেক্টর জমিতে। সাতক্ষীরা জেলায় পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১১হাজার ৫শ’৫০ হেক্টর জমিতে।পাট চাষ হয়েছে ১০হাজার ৮শ’ হেক্টর জমিতে।বাগেরহাট জেলায় পাট চাষের লক্ষ্যমাত্রা ছিল ১হাজার ৯শ’১৯ হেক্টর জমিতে।এ জেলায় পাট চাষ হয়েছে ১হাজার ৯শ’ ৬৮ হেক্টর জমিতে।
কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর নড়াইলের উপ-পরিচালক দীপক কুমার রায় বলেন, এ মওসুমের পাট কর্তন শেষে পথে।এ পর্যন্ত ৯৭শতাংশ জমির পাট কাটা শেষ হয়েছে।পাট জাগ শেষে পাটগাছ থেকে আঁশ বাছাই চলছে।পাটের দামও ভালো।বর্তমানে প্রতিমণ পাট ২হাজার ৪শ’ টাকা থেকে ২হাজার ৫শ’ টাকা দরে বাজারে বিক্রি হচ্ছে।নড়াইল পাট চাষের জন্য উপযোগী একটি জেলা। এ জেলায় পাটের ফলনও ভালো হয়েছে।গত বছর পাটের দাম ভালো পাওয়ায় চলতি মওসুমে এ জেলায় লক্ষ্যমাত্রার চেয়ে ৩শ’৬৫ হেক্টর বেশি জমিতে পাটের আবাদ হয়েছে বলে তিনি জানান।