বাসস দেশ-৩৩ : হেগে বাংলাদেশ দূতাবাসে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী পালিত

242

বাসস দেশ-৩৩
বঙ্গমাতা-জন্মবার্ষিকী-আলোচনা
হেগে বাংলাদেশ দূতাবাসে বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী পালিত
ঢাকা, ৮ আগস্ট, ২০২০ (বাসস) : নেদারল্যান্ডে বাংলাদেশ দূতাবাস জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের সহধর্মিনী ও বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী যথাযথ মর্যদায় পালন করেছে।
এ উপলক্ষ্যে হেগে অবস্থিত দূতাবাসের সম্মেলন কক্ষে আজ এক ও আলোচনা ও দোয়া-মাহফিলের আয়োজন করা হয়।
দূতাবাসের কর্মকর্তা-কর্মচারীবৃন্দ এবং হল্যান্ড আওয়ামী লীগের নেতৃস্থানীয় ব্যক্তিরা অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন।
এ অনুষ্ঠানের শুরুতে জাতির জনক বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমান, বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিব ও বঙ্গবন্ধু পরিবারের সকল শহীদের আত্মার মাগফেরাত কামনা করে বিশেষ মোনাজাত করা হয়।
এরপর, শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবের ৯০তম জন্মবার্ষিকী উপলক্ষ্যে বাংলাদেশের রাষ্ট্রপতি ও প্রধানমন্ত্রীর পৃথক বাণী পাঠ করে শোনানো হয়।
নেদারল্যান্ডে নিযুক্ত বাংলাদেশের রাষ্ট্রদূত রিয়াজ হামিদুল্লাহ এবং হল্যান্ড আওয়ামী লীগের নেতা জয়নাল আবেদীন আলোচনা অনুষ্ঠানে বক্তৃতা করেন।
ঢাকায় প্রাপ্ত এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, অনুষ্ঠানে রাষ্ট্রদূত রিয়াজ হামিদুল্লাহ বঙ্গমাতার আদর্শিক জীবনের বিভিন্ন দিক তুলে ধরেন।
তিনি বলেন, ‘বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা একইসাথে ছিলেন বঙ্গবন্ধু শেখ মুজিবুর রহমানের একজন যোগ্য ও বিশ্বস্ত সহচর, যিনি শুধুমাত্র সংসার, সন্তান লালন-পালন নিয়েই ব্যস্ত থাকেননি, বাংলাদেশের মহান স্বাধীনতা সংগ্রাম, মুক্তিযুদ্ধ এবং স্বাধীনতার পর দেশ পুনর্গঠনেও বলিষ্ঠ ভূমিকা রেখেছেন।’
রাষ্ট্রদূত বঙ্গমাতার ত্যাগ ও আদর্শকে সকল বাঙালি নারীর জন্য অনুপ্রেরণার উৎস হিসেবে অভিহিত করেন।
জয়নাল আবেদীন বলেন, ‘বঙ্গমাতা শেখ ফজিলাতুন নেছা মুজিবকে স্বাধীন বাংলাদেশের অভ্যূদয়ে শুধুমাত্র আমাদের জাতির পিতার যোগ্য সহধর্মিনী হিসেবে নয় বরং প্রজ্ঞাবান একজন সহকর্মী হিসেবে দেখতে হবে। কিভাবে তিনি সকল পার্থিব সমস্যা থেকে মুক্ত রেখে স্বাধীনতা সংগ্রামে বঙ্গবন্ধুকে সহযোগিতা করেছেন তার গুরুত্বও বুঝতে হবে।’
সবশেষে, বঙ্গমাতা শেখ ফজিালাতুন নেছা মুজিবের কীর্তিময় জীবনের ওপর স্বল্পদৈর্ঘ্য একটি প্রামাণ্যচিত্র প্রদর্শিত হয়।
বাসস/সবি/জেডআরএম/২১৪০/-শআ