আঙ্কটাড সম্ভাব্য কোভিড-১৯ টিকা গরীবদের কাছে পৌঁছানোর উপায় খুঁজছে

399

ঢাকা, ২৭ মে, ২০২০ (বাসস) : জাতিসংঘের বাণিজ্য ও উন্নয়ন সংস্থা আঙ্কটাড বলেছে, কোভিড-১৯-এর টিকার পাওয়ার পর্যাপ্ত সম্ভাবনা নিশ্চিত করতে দরিদ্র দেশগুলোর স্থানীয় উৎপাদন বাড়ানো প্রয়োজন। এই ভাইরাসের টিকা উদ্ভাবনে তীব্র প্রতিযোগিতা চলছে। আঙ্কটাড সম্ভাব্য কোভিড-১৯ টিকা গরীবদের কাছে পৌঁছানোর উপায় খুঁজছে।
আজ জাতিসংঘের বাণিজ্য ও উন্নয়ন সংক্রান্ত সম্মেলন (আঙ্কটাড) এক বিবৃতিতে বলেছে, ‘একটি বিস্ময়কর সাফল্যের প্রত্যাশা দেখা যাচ্ছে।’ কোভিড-১৯-এর টিকা উদ্ভাবনে বিশ্বব্যাপী প্রায় ১শ’ প্রকল্প চলমান রয়েছে। এর মধ্যে ৮টি প্রকল্প ক্লিনিক্যাল পর্যায়ে প্রবেশ করেছে।
আঙ্কটাডের ইনভেস্টমেন্ট এন্ড এন্টারপ্রাইজ ডিরেক্টর জ্যামস জাহান বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার অনলাইন সেমিনারের উদ্বোধনীতে বলেন, কোভিড-১৯-এর টিকা একসময় পর্যাপ্ত পরিমাণে পাওয়া যাবে। তবে উদ্ভাবনের সাথে সাথে এটির ব্যাপক চাহিদার কারণে সরবরাহ সংকট দেখা দিতে পারে। ফার্মাসিটিক্যাল ইন্ডাস্ট্রিগুলো চাহিদার বিষয়টি মাথায় না রাখলে গরিব দেশগুলো টিকা প্রাপ্তির ক্ষেত্রে পেছনে পড়ে যাবে।
আঙ্কটাডের বিবৃতিতে আরো বলা হয়, কোভিড-১৯-এর সম্ভাব্য টিকাসহ প্রয়োজনীয় ওষুধ পেতে গরিব দেশগুলোর সহায়তায় বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থার সাথে জাতিসংঘ সংস্থার একযোগে কাজ করা উচিত। পাশাপাশি উন্নয়নশীল দেশগুলোতে প্রয়োজনীয় ওষুধ উৎপাদন স্থানীয়ভাবে বৃদ্ধির জরুরি আহ্বান জানানো হয়।
ফ্রান্সের বৃহত্তম ফার্মাসিউটিক্যালস কোম্পানি স্যানোফি পাস্তেউর গত মাসে বলেছে, তাদের টিকার প্রথম ডোজ যুক্তরাষ্ট্রে যাবে। কারণ যুক্তরাষ্ট্র সরকার এই টিকা আবিষ্কারের প্রয়োজনীয় গবেষণায় প্রথম বিনিয়োগ করেছে। তবে এটি অনুমোদন হওয়ার পরেই যুক্তরাষ্ট্রে পাঠানো হবে।
আঙ্কটাড ও বিশ্ব স্বাস্থ্য সংস্থা জানিয়েছে, বহু উন্নয়নশীল দেশের প্রয়োজনীয় ওষুধ, টিকা, এন্টিবায়োটিক অথবা ব্যক্তিগত সুরক্ষা সরঞ্জাম উৎপাদনের সক্ষমতা তৈরির জন্য সহায়তা প্রয়োজন। তবে দুটি সংস্থাই বলেছে, এশিয়ার মধ্যম আয় ও নি¤œ মধ্যম আয়ের দেশগুলো মানসম্পন্ন স্থানীয় ফার্মসিটিক্যাল শিল্প স্থাপন করতে সক্ষম হলেও আফ্রিকায় তা সম্ভব হয়নি। কারণ সেখানে অধিকাংশই স্বল্পোন্নত দেশ।