বাসস দেশ-২৭ : জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম এবং ড. আনিসুজ্জামানকে সংবর্ধনা প্রদান

565

বাসস দেশ-২৭
সংবর্ধনা-প্রদান
জাতীয় অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম এবং ড. আনিসুজ্জামানকে সংবর্ধনা প্রদান
ঢাকা, ১৮ জুলাই ২০১৮ (বাসস): জাতীয় অধ্যাপক পদে অধিষ্ঠিত হওয়ায় ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভাষাবিজ্ঞান বিভাগের অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম এবং বাংলা বিভাগের এমিরিটাস অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামানকে সংবর্ধনা প্রদান করা হয়েছে।
ঢাকা বিশ্ববিদ্যালয় ভাষাবিজ্ঞান বিভাগ আজ বুধবার নবাব নওয়াব আলী চৌধুরী সিনেট ভবনে এই সংবর্ধনা অনুষ্ঠানের আয়োজন করে।
ভাষাবিজ্ঞান বিভাগের অনারারি অধ্যাপক ড. আবুল কালাম মনজুর মোরশেদ এই অনুষ্ঠানে সভাপতিত করেন। অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথি ছিলেন বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাইস-চ্যান্সেলর অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান এবং বিশেষ অতিথি ছিলেন প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (শিক্ষা) অধ্যাপক ড. নাসরীন আহমাদ, প্রো-ভাইস চ্যান্সেলর (প্রশাসন) অধ্যাপক ড. মুহাম্মদ সামাদ ও কলা অনুষদের ডিন অধ্যাপক ড. আবু মো. দেলোয়ার হোসেন।
অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামানের ওপর প্রশস্তিপাঠ করেন অধ্যাপক ড. সিকদার মনোয়ার মুর্শেদ এবং অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলামের ওপর প্রশস্তিপাঠ করেন অধ্যাপক ড. ফিরোজা ইয়াসমীন। আলোচনায় অংশ নেন অধ্যাপক ড. জীনাত ইমতিয়াজ আলী এবং অধ্যাপক ড. সাখাওয়াৎ আনসারী। স্বাগত বক্তব্য দেন ভাষাবিজ্ঞান বিভাগের চেয়ারপার্সন ড. সালমা নাসরীন।
উপাচার্য অধ্যাপক ড. মো. আখতারুজ্জামান দেশের দুই কৃতী শিক্ষাবিদকে অভিনন্দন জানিয়ে বলেন, বাংলা ভাষা ও সাহিত্যের উৎকর্ষ সাধন তথা জাতি বিনির্মাণে তারা অনন্য অবদান রেখে চলেছেন। মহান মুক্তিযুদ্ধ ও ভাষা আন্দোলনেও তারা অগ্রণী ভূমিকা পালন করেন।
তিনি বলেন,ভাষা আন্দোলনের অসংখ্য দুর্লভ ছবি তুলেছিলেন অধ্যাপক ড. রফিকুল ইসলাম। বিশিষ্ট এই নজরুল গবেষক মহান মুক্তিযুদ্ধের সময় পাকিস্তানী বাহিনীর হাতে নির্যাতিত হন। উপাচার্য বলেন,অধ্যাপক ড. আনিসুজ্জামান মহান মুক্তিযুদ্ধে পরিকল্পনা কমিশনের সদস্য ছিলেন। দেশের বিভিন্ন ক্রান্তিকালে তিনি জাতিকে দিক-নির্দেশনা প্রদান করেন। সততা ও বস্তুনিষ্ঠতা তাদের চরিত্রের অন্যতম বৈশিষ্ট্য।
ড. মো. আখতারুজ্জামান বলেন, তাদের জীবন ও কর্ম থেকে নতুন প্রজন্মকে শিক্ষা নিতে হবে। তাদের আদর্শ অনুসরণ করে সকলকে দেশপ্রেমিক, সৎ, বিনয়ী ও মানবিক মূল্যবোধ সম্পন্ন মানুষ হতে হবে।
বাসস/সবি/এমএমবি/২০৩৩/কেএমকে