বাসস প্রধানমন্ত্রী-২ (দ্বিতীয় ও শেষ কিস্তি) : সাহসের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

141

বাসস প্রধানমন্ত্রী-২ (দ্বিতীয় ও শেষ কিস্তি)
শেখ হাসিনা-জাতির উদ্দেশ্যে ভাষণ
সাহসের সঙ্গে পরিস্থিতি মোকাবেলার জন্য দেশবাসীর প্রতি আহ্বান প্রধানমন্ত্রীর

প্রধানমন্ত্রী বলেন, বিদ্যমান সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমসমূহ অব্যাহত রাখার পাশাপাশি করোনা ভাইরাসজনিত কারণে প্রান্তিক জনগোষ্ঠির সুরক্ষায় আরো যেসব কর্মসূচি গ্রহণ করা হয়েছে সেগুলো হচ্ছে- দিনমজুর, রিক্সা বা ভ্যান চালক, মটর শ্রমিক, নির্মাণ শ্র্রমিক, পত্রিকার হকার, হোটেল শ্র্রমিকসহ অন্যান্য পেশার মানুষ যাঁরা দীর্ঘ ছুটি বা আংশিক লক-ডাউনের ফলে কাজ হারিয়েছেন তাঁদের নামের তালিকা ব্যাংক হিসাবসহ দ্রুত তৈরির করার নির্দেশ দেওয়া হয়েছে। এই তালিকা প্রণয়ন সম্পন্ন হলে এককালীন নগদ অর্থ সরাসরি তাঁদের ব্যাংক হিসাবে পাঠানো হবে। এখাতে ৭৬০ কোটি বরাদ্দ করা হয়েছে।
পাশাপাশি সামাজিক সুরক্ষা কার্যক্রমের আওতায় পরিচালিত ‘বয়স্ক ভাতা’ ও ‘বিধবা ও স্বামী নিগৃহীতা মহিলাদের জন্য ভাতা’ কর্মসূচির আওতা সর্বাধিক দারিদ্র্যপ্রবণ ১০০টি উপজেলায় শতভাগে উন্নীত করা হবে। বাজেটে এর জন্য বরাদ্দের পরিমাণ ৮১৫ কোটি টাকা।
প্রধানমন্ত্রী এ সময় জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উদযাপন উপলক্ষ্যে দেশের কোন জনগণকে গৃহহীণ না রাখায় তাঁর অঙ্গীকার পুণর্ব্যক্ত করে বলেন, ‘জাতির পিতার জন্মশতবার্ষিকী উপলক্ষে গৃহীত অন্যতম কার্যক্রম গৃহহীন মানুষদের জন্য গৃহ নির্মাণ কর্মসূচি দ্রুত বাস্তবায়ন করা হবে। এ বাবদ সর্বমোট ২ হাজার ১৩০ কোটি টাকা বরাদ্দ করা হবে। কেউ গৃহহীন থাকবেন না।’
শিল্পখাতে যে সব আর্থিক প্যাকেজ গ্রহণ করা হয়েছে তাঁর উল্লেখ করে সরকার প্রধান বলেন, ক্ষতিগ্রস্ত শিল্প ও সার্ভিস সেক্টরের প্রতিষ্ঠানসমূহের ওয়ার্কিং ক্যাপিটালের জন্য ৩০ হাজার কোটি টাকা, অতি-ক্ষুদ্র, ক্ষুদ্র ও মাঝারি শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহের ওয়ার্কিং ক্যাপিটালের জন্য ২০ হাজার কোটি টাকা, এক্সপোর্ট ডেভেলপমেন্ট ফান্ডে’র (ইডিএফ) সুবিধা বাড়ানোর জন্য ১২ হাজার ৭৫০ কোটি টাকা, প্রি-শিপমেন্ট ক্রেডিট রিফিন্যান্স স্কীমে’র আওতায় ৫ হাজার কোটি টাকা এবং রপ্তানিমুখী শিল্প প্রতিষ্ঠানসমূহের জন্য বিশেষ তহবিল বাবদ ৫ হাজার কোটি টাকার ঋণ সুবিধা প্রদান করা হবে।

প্রধানমন্ত্রী এ সময় করোনা পরবর্তী সময়ে বিশ্বে খাদ্য সংকট দেখা দেওয়ার আশংকার পুনরোল্লেখ করে সার্বিক খাদ্য উৎপাদন বাড়াতে দেশের এক টুকরো জমি ও অনাবাদী ফেলে না রাখায় তাঁর উদাত্ত আহবান পুণর্ব্যক্ত করেন।
তিনি বলেন, ‘সামনের দিনগুলিতে যাতে কোনপ্রকার খাদ্য সঙ্কট না হয়, সেজন্য আমাদের একখ- জমিও ফেলে রাখা চলবে না।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘এজন্য কৃষি-সংশ্লিষ্ট মন্ত্রণালয়গুলোকে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেওয়া হয়েছে। বীজ, সার, কীটনাশকসহ সকল ধরনের কৃষি উপকরণের ঘাটতি যাতে না হয় এবং সময়মত কৃষকের হাতে পৌঁছে – সে ব্যবস্থা আমরা নিয়েছি।’
কৃষকেরা যাতে উৎপাদিত বোরো ধানের ন্যায্যমূল্য পান সে জন্য চলতি মওসুমে গত বছরের চেয়ে ২ লাখ মেট্রিক টন অতিরিক্ত ধান ক্রয় করা হবে উল্লেখ করে তিনি বলেন, ‘এজন্য অতিরিক্ত ৮৬০ কোটি টাকা ব্যয় হবে। কৃষি যন্ত্রপাতি ক্রয়ের জন্য ২০০ কোটি টাকা বরাদ্দ দেওয়া হয়েছে।’
শেখ হাসিনা বলেন, তাঁর সরকার কৃষি খাতে চলতি মূলধন সরবরাহের জন্য ৫ হাজার কোটি টাকার একটি তহবিল গঠন করছে।
তিনি বলেন, ‘এ তহবিল হতে ক্ষুদ্র ও মাঝারি চাষীদের কৃষি, মৎস্য, ডেইরি এবং পোল্ট্রি খাতে ৪ শতাংশ সুদহারে ঋণ প্রদান করা হবে। কৃষি ভর্তুকি বাবদ বরাদ্দ রাখা হচ্ছে ৯ হাজার ৫০০ কোটি টাকা।’
খাদ্য ও কৃষি পণ্য সরবরাহ ও বিতরণ ব্যবস্থা অটুট রাখতে তাঁর সরকারের বিশেষ ব্যবস্থা গ্রহণের কথাও উল্লেখ করেন প্রধানমন্ত্রী।
সরকার প্রধান ত্রাণ বিতরণে শৃঙ্খলার প্রয়োজনীয়তার উল্লেখ করে বলেন, ত্রাণসামগ্রী ও সহায়তা বিচ্ছিন্নভাবে না বিলিয়ে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠান এবং আইন-শৃঙ্খলা বাহিনীর সদস্যদের মাধ্যমে শৃঙ্খলার সঙ্গে বিতরণ করা প্রয়োজন। তা না হলে ভাইরাস সংক্রমণের আশংকা থেকে যাবে।
তিনি বিত্তবানদের এ সময় সহযেগিতার মানসিকতা নিয়ে আরো অধিকহারে এগিয়ে আসার আসার আহ্বানও পূণর্ব্যক্ত করেন।
করোনা ভাইরাসের সংক্রমণ রোধে প্রধানমন্ত্রী পুণরায় জনগণকে ঘরে থাকায় তাঁর আহ্বান পুণর্ব্যক্ত করেন।
তিনি বলেন, প্রাণঘাতী এই রোগ প্রতিরোধের সবচেয়ে কার্যকর উপায় হচ্ছে কোয়ারেন্টিন বা সঙ্গনিরোধ। অর্থাৎ নিজেকে ঘরবন্দি করে রাখা। বিশ্বের ২৫০ কোটিরও বেশি মানুষ আজ ঘরবন্দি। কোথাও লকডাউন, কোথাও গণছুটি আবার কোথাও কার্ফিউ জারি করে মানুষকে ঘরবন্দি করা হয়েছে।
তিনি বলেন, বাংলাদেশেও গত ২৫-এ মার্চ থেকে ২৫-এ এপ্রিল পর্যন্ত একটানা ৩২ দিন সাধারণ ছুটি বলবৎ হয়েছে। জরুরি সেবা কার্যক্রম ছাড়া সবকিছু বন্ধ ঘোষণা করা হয়েছে।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘অযথা কোথাও ভিড় করবেন না। সামাজিক দূরত্ব বজায় রাখুন এবং স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলুন। করোনাভাইরাস সংক্রমণ থেকে নিজেকে রক্ষা করুন, পরিবারের সদস্যদের রক্ষা করুন।’
বাসস/এএসজি-এফএন/২০৪২/আরজি