বাসস প্রধানমন্ত্রী-২ (দ্বিতীয় ও শেষ কিস্তি) : ২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার

265

বাসস প্রধানমন্ত্রী-২ (দ্বিতীয় ও শেষ কিস্তি)
মন্ত্রিসভা-বৈঠক-ছুটি
২৬ মার্চ থেকে ৪ এপ্রিল পর্যন্ত সরকারি ছুটি ঘোষণা করেছে সরকার

মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, জেলা ম্যাজিস্ট্রেটদের সাথে সমন্বয় করে সেনা সদস্যরা কোভিড-১৯ রোগীদের চিকিৎসার ব্যবস্থা করবেন এবং বিভাগীয় ও জেলা পর্যায়ে সন্দেহভাজনদের কোয়ারেন্টিনে পাঠাবেন।
করোনা ভাইরাসের বিস্তার ঠেকাতে সরকার এই সিদ্ধান্ত নিয়েছে উল্লেখ করে মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, জনসাধারণকে জরুরি প্রয়োজন ছাড়া বাড়ি-ঘরের বাইরে না যেতে বলা হয়েছে।
তিনি বলেন, অফিস-আদালতের প্রয়োজনীয় কাজ-কর্ম অনলাইনের মাধ্যমে সম্পন্ন করা যেতে পারে এবং প্রয়োজনে কর্তৃপক্ষ যে কোনো সরকারি অফিস খোলা রাখতে পারে।
আনোয়ারুল বলেন, ছুটির দিনে গণপরিবহন চলাচল সীমাবদ্ধ থাকবে। তবে জনগণকে গণপরিবহন এড়িয়ে চলার পরামর্শ দেয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, ‘যদি কোনও যাত্রী জরুরি প্রয়োজনে গণপরিবহনে ভ্রমণ করতে চান তবে তাকে অবশ্যই ভাইরাস সংক্রমণ এড়ানোর ব্যবস্থা নিতে হবে। হ্যান্ড গ্লাভস এবং মাস্ক পরার পাশাপাশি চালক ও হেল্পারদের অবশ্যই পর্যাপ্ত সতর্কতা অবলম্বন করতে হবে।’
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, জনসাধারণের প্রয়োজনের কথা বিবেচনা করে সীমাবদ্ধভাবে ব্যাংকিং পরিষেবা চালু রাখতে বাংলাদেশ ব্যাংক এ বিষয়ে প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেবে।
তিনি বলেন, সরকার ‘ঘরে ফেরা করমোসুচি’র আওতায় করোনাভাইরাস প্রাদুর্ভাবের কারণে ক্ষতিগ্রস্ত নগরীর নিম্ন-আয়ের লোকেদের সহায়তা দেবে এবং এ বিষয়ে জেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
সরকার জীবিকার সুযোগ তৈরি করেছে এবং ভাসান চরে প্রায় এক লাখ লোকের আবাসন নিশ্চিত করেছে উল্লেখ করে আনোয়ার বলেন, জেলা প্রশাসনকে সুযোগসুবিধা গ্রহণ করতে আগ্রহীদের এ দ্বীপে পাঠানোর নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
তিনি বলেন, করোনাভাইরাস প্রতিরোধ কর্মসূচি বাস্তবায়নের ফলে দরিদ্র জনগণ ক্ষতিগ্রস্ত হলে তাদের খাদ্য ও সহায়তা প্রদানের জন্যও জেলা প্রশাসনকে নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
মন্ত্রিপরিষদ সচিব বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা ইতোমধ্যে করোনাভাইরাস প্রতিরোধে যথাযথ ভূমিকা রাখার জন্য ৫০০ জন চিকিৎসকের একটি তালিকা প্রস্তুতের জন্য বাংলাদেশ মেডিকেল অ্যাসোসিয়েশন (বিএমএ)-কে নির্দেশ দিয়েছেন।
সরকার দেশের সকল রাজনৈতিক, সামাজিক ও ধর্মীয় সমাবেশে বিধিনিষেধ আরোপ করেছে উল্লেখ করে তিনি কোভিড-১৯-এর লক্ষণযুক্ত লোকদের নামাজের জন্য মসজিদে না যাওয়ার আহ্বান জানান।
প্রধানমন্ত্রীর মুখ্য সচিব ড. আহমদ কায়কাউস এবং স্বাস্থ্যসেবা বিভাগের সচিব মো. আসাদুল ইসলামও সংবাদ সম্মেলনে বক্তব্য রাখেন।
বাসস/এমআরআই/অনুবাদ-এইচএন/২২২০/এবিএইচ