বাসস ক্রীড়া-১৫ : উইলিয়ামসের প্রত্যাবর্তন আশা যোগাচ্ছে জিম্বাবুয়েকে

391

বাসস ক্রীড়া-১৫
ক্রিকেট-জিম্বাবুয়ে-উইলিয়ামস
উইলিয়ামসের প্রত্যাবর্তন আশা যোগাচ্ছে জিম্বাবুয়েকে
সিলেট, ২ মার্চ ২০২০ (বাসস): প্রথম সন্তান প্রসবের সময় স্ত্রীর কাছে থাকার পর জিম্বাবুয়ে দলের সঙ্গে যোগ দিয়েছেন সিনিয়র ক্রিকেটার সেন উইলিয়ামস। তার এই প্রত্যাবর্তন স্বাগতিক বাংলাদেশের বিপক্ষে তিন ম্যাচের ওয়ানডে সিরিজে সমতায় ফেরানোর স্বপ্ন দেখাচ্ছে ধুকতে থাকা দলটিকে। এর আগে হেরে যাওয়া একমাত্র টেস্ট ও প্রথম ওয়ানডেতে আফ্রিকার দলটিতে ছিলেন না উইলিয়ামস। স্বাগতিক বাংলাদেশের কাছে একমাত্র টেস্টে ইনিংস ব্যবধানে এবং গতকাল প্রথম ওয়ানডেতে ১৬৯ রানের বড় ব্যবধানে পরাজিত হয়েছে জিম্বাবুয়ে।
আগামীকাল মঙ্গলবার সিরিজের দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচে বাংলাদেশের মুখোমুখি হবে জিম্বাবুয়ে। সিলেট আন্তর্জাতিক ক্রিকেট স্টেডিয়ামে এটি হবে জিম্বাবুয়ের জন্য ‘বাঁচা মরার’ ম্যাচ। কারণ প্রথম ম্যাচে বড় ব্যবধানে হেরে পিছিয়ে রয়েছে দক্ষিন আফ্রিকার দেশটি। এ ম্যাচে হারলে সিরিজ পরাজয় নিশ্চিত হয়ে যাবে তাদের।
সেরা ব্যাটসম্যান উইলিয়ামসের প্রত্যাবর্তনে ক্রেগ আরভিনকে সঙ্গে নিয়ে দলটি সেরা ম্যাচ উপহার দেয়ার আশা করছে। উইলিয়ামসও বলেছেন দলকে লড়াইয়ে ফেরাতে হলে সিনিয়র সদস্যদেরই দায়িত্ব নিতে হবে।
দ্বিতীয় ওয়ানডে ম্যাচকে সামনে রেখে উইলিয়ামস আজ সাংবাদিকদের বলেন,‘১-০ ব্যবধানে পিছিয়ে থাকায় ছেলেদের মানসিকভাবে শক্ত থাকা কঠিন। সবদিক থেকেই গতকালের পারফরমেন্স ছিলো হতাশাজনক।’
তিনি আরও বলেন, ‘আমাদের সামনে এগিয়ে যেতে হবে। কালকের জন্য পরিকল্পনা করা খুব জরুরি। আশা করি আমার উপস্থিতি দলে কিছুটা সাহস ও প্রশান্তি আনতে পারবে। ক্রেইগ আরভিনও দলে আছে। সেও খেলতে প্রস্তুত। আমি মনে করি, দীর্ঘ সময়ের জন্য ভালো সিদ্বান্ত নেয়াটা গুরুত্বপূর্ণ। ব্রেন্ডন টেইলর ও সিকান্দার রাজার মত খেলোয়াড়রা দলে বড় ভূমিকা পালন করে। তাদের জ্বলে উঠা, আমাদের জন্য গুরুত্বপূর্ণ হয়ে পড়েছে,আশা করি দলকে আমিও কিছুটা শক্তির যোগান দিতে পারব।’
উইলিয়ামসের মতে জিম্বাবুয়ের খেলোয়াড়রা নিজেদের মেলে ধরতে পারেনি। সবদিক থেকেই এগিয়ে ছিল স্বাগতিক দলের খেলোয়াড়রা। মানষিক বাঁধা অতিক্রম করে হাফ সেঞ্চুরিকে সেঞ্চুরিতে পরিণত করার জন্য সতীর্থদের প্রতি আহ্বান জানান উইলিয়ামস। যাতে বাংলাদেশকে কঠিন চ্যালেঞ্জে ফেলা সম্ভব হয়।
জিম্বাবুয়ে তারকা বলেন,‘ আমি মনে করিনা এটি ছেলেদের মানষিকতার বাঁধা। আমি মনে করি সাধারণ একটি চিন্তা মাথায় রাখতে হবে, সেটি হচ্ছে বেশী করা। আমার মনে হয় ৫০ বা ৬০ রান করার পরেই ছেলেরা মাঠ ছাড়ার জন্য ছটফট করে। অপরদিকে আমাদের বিপক্ষে বাংলাদেশের ব্যাটসম্যামনরা শতক হাকিয়ে যাচ্ছে। আমার মতে সেঞ্চুরি খুবই গুরুত্বপুর্ন, বিশেষ করে সিনিয়র খেলোয়াড়দের কাছ থেকে।’
দ্বিতীয় ম্যাচের আগে কৌশলগত কিছু বিষয়েরও পরিবর্তন দরকার বলে মনে করেন উইলিয়ামস। তিনি বলেন,‘ সেখানে কিছু কৌশলগত বিষয় রয়েছে। আমাদের বেশ কয়েকজন খেলোয়াড় ব্যাকফুটে খেলতে গিয়ে আউট হয়েছেন । ক্রিজ থেকে এগিয়ে আসা এবং সামনে এগিয়ে খেলাটা একটা বড় বিষয়। পরবর্তী ধাপ হচ্ছে সেটা বাস্তবায়ন করা।’
খেলার চেস্টা করাটা গুরুত্বপুর্ন।’
বাসস/এসএমপি/অনু/এমএইচসি/১৭১৫ /স্বব