যশোর শিক্ষাবোর্ডে এবার ১ লাখ ৬১ হাজার ৬৯৫ জন এসএসসি পরীক্ষায় অংশ নিবে

425

যশোর, ২ ফেব্রুয়ারি, ২০২০ (বাসস) : যশোর শিক্ষাবোর্ডের অধীনে এ বছরের মাধ্যমিক স্কুল সার্টিফিকেট (এসএসসি) পরীক্ষায় মোট ১লাখ ৬১ হাজার ৬৯৫ জন পরীক্ষার্থী অংশ নিবে। এ পরীক্ষার্থীর মধ্যে ছাত্র ৮০ হাজার ৬৭০জন এবং ছাত্রী রয়েছে ৮১ হাজার ২৫ জন।মোট পরীক্ষার্থীর মধ্যে অনিয়মিত পরীক্ষার্থীর সংখ্যা ২৪ হাজার ১৬৬ জন। দেশের অন্যান্য শিক্ষাবোর্ডের মতো আগামীকাল সোমবার থেকে যশোর শিক্ষাবোর্ডেও এসএসসি পরীক্ষা শুরু হবে। এ শিক্ষাবোর্ডের অধীনে ১০ জেলার ২হাজার ৫২১টি শিক্ষা প্রতিষ্ঠানের পরীক্ষা ২৮৬টি কেন্দ্রে অনুষ্ঠিত হবে বলে বোর্ড সূত্রে জানা গেছে।
জেলাগুলো হচ্ছে-যশোর, নড়াইল, ঝিনাইদহ, মাগুরা, কুষ্টিয়া, চুয়াডাঙ্গা, মেহেরপুর, সাতক্ষীরা, খুলনা ও বাগেরহাট।
যশোর শিক্ষাবোর্ড সূত্রে জানা গেছে, এ বছর যশোর জেলায় ২৭ হাজার ৮৪৪ জন,নড়াইলে ৮ হাজার ৮৬৮ জন,ঝিনাইদহে ১৮ হাজার ১৪৯ জন,মাগুরায় ৯ হাজার ৯৪৭ জন, কুষ্টিয়ায় ২২ হাজার ১১০ জন,মেহেরপুরে ৭ হাজার ৮৭১ জন, চুয়াডাঙ্গায় ১০ হাজার ৪৫০ জন, সাতক্ষীরায় ১৮ হাজার ১০৯ জন, খুলনায় ২৪ হাজার ৪৬০ জন এবং বাগেরহাট জেলায় ১৩ হাজার ৮৮৭ জন পরীক্ষার্থী রয়েছে।
যশোর শিক্ষাবোর্ডের পরীক্ষা নিয়ন্ত্রক প্রফেসর মাধব চন্দ্র রুদ্র জানান, বোর্ড কর্তৃপক্ষ শান্তিপূর্ণ পরিবেশ নিশ্চিত এবং পরীক্ষাকেন্দ্রগুলো নকলমুক্ত করার জন্য সর্বাতœক ব্যবস্থা গ্রহণ করেছে।বোর্ডের পক্ষ থেকে ১০টি ভিজিলেন্স টিম গঠন করা হয়েছে।প্রশ্নফাঁস এবং নকলমুক্ত সুষ্ঠু পরিবেশে আসন্ন এসএসসি পরীক্ষা নেয়ার ব্যাপারে কঠোর পদক্ষেপ নিয়েছে শিক্ষাবোর্ড।প্রত্যেক পরীক্ষার্থীকে পরীক্ষা শুরুর ৩০ মিনিট আগে পরীক্ষা কেন্দ্রে উপস্থিত হতে হবে। সুষ্ঠু, সুন্দর ও নকলমুক্ত পরিবেশে এ পরীক্ষা সম্পন্ন হবে বলে তিনি আশাবাদ ব্যক্ত করেন।
যশোর শিক্ষাবোর্ডের চেয়ারম্যান প্রফেসর মোল্লা আমীর হোসেন বলেন, আসন্ন এসএসসি পরীক্ষা সুষ্ঠুভাবে সম্পন্নের লক্ষ্যে যাবতীয় প্রস্তুতি গ্রহণ হয়েছে।কেন্দ্র সচিবদের পরীক্ষার নিয়ম-কানুন সংক্রান্ত প্রয়োজনীয় নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।কোন পরীক্ষার্থী নির্ধারিত সময়ের পরে কেন্দ্রে প্রবেশ করলে তাদের জন্য আলাদা রেজিষ্ট্রার খাতায় দেরিতে প্রবেশের কারণের ব্যাখা লিখে স্বাক্ষর করার পর পরীক্ষায় অংশ নেয়ার অনুমতি দেয়ার জন্য কেন্দ্র সচিবদের নির্দেশনা দেয়া হয়েছে।
নড়াইলের লক্ষীপাশা-লোহাগড়া মাধ্যমিক বালিকা বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক কে,এম রেজাউল ইসলাম বলেন,পরীক্ষায় যে কোন ধরনের অসদুপায় অবলম্বন থেকে বিরত থাকার জন্য আমরা পরীক্ষার্থীদেরকে উদ্বুদ্ধ করেছি।