বাসস ক্রীড়া-১৪ : তৃতীয় সিমারের অভাব বোধ করছেন ডোমিঙ্গো

355

বাসস ক্রীড়া-১৪
ক্রিকেট-বাংলাদেশ-সিমার
তৃতীয় সিমারের অভাব বোধ করছেন ডোমিঙ্গো
ইন্দোর, ১৫ নভেম্বর, ২০১৯ (বাসস) : ইন্দোরের পিচ ফাস্ট বোলারদের জন্য সব কিছুই সাজিয়ে রেখেছিল। বিশেষ করে লাইন ও লেন্থ ঠিক রেখে বোলিংয়ের মাধ্যমে ম্যাচকে নিয়ন্ত্রণ করা যাচ্ছিল। যে কারণে বাংলাদেশ দলের প্রধান কোচ রাসেল ডোমিঙ্গো তৃতীয় সিমারের অভাবটি দারুণভাবে অনুভব করেছেন।
আজ ভারতের বিপক্ষে প্রথম টেস্টের দ্বিতীয় দিন শেষে বাংলাদেশী পেসার আবু জায়েদ রাহি ও এবাদত হোসেনের প্রশংসা করেন টাইগার কোচ। স্বাগতিক দলের পড়ে যাওয়া ছয় উইকেটের মধ্যে ৫টিই ভাগ করে নিয়েছেন টাইগার দলের এই দুই পেসার। এমনকি মাত্র ১০৮ রানে ৪ উইকেট তুলে নিয়ে স্বাগতিকদের চাপের মধ্যেই ফেলে দিয়েছিলেন তারা।
শেষ পর্যন্ত এবাদত অবশ্যই তার লাইন ও লেন্থ ঠিক রাখতে পারেননি। তারপরও স্পিনারদের চেয়ে ভাল করেছেন তিনি। সেখানকার পিচ থেকে কোন সহায়তাই পায়নি স্পিনাররা। ডোমিঙ্গোর মতে তৃতীয় একজন সিমার থাকলে রাহি ও এবাদত সহযোগিতা পেত। তাতে হয়তো স্বাগতিক ভারতীয়দের ব্যাটিংকে নিয়ন্ত্রণ করা যেত।
ডোমিঙ্গো বলেন, ‘দলের বর্তমান কাঠামোর পরিবর্তন দরকার। দুই সিমার দিয়ে খেলানো বেশ কঠিন। এ দিন ৬ উইকেটের বিনিময়ে ৪৯৩ রান সংগ্রহ করেছে ভারত। বাংলাদেশের ১৫০ রানের জবাবে এখন ৩৪৩ রানে এগিয়ে রয়েছে স্বাগতিকরা।
টাইগার কোচ বলেন, ‘আমাদের অবশ্যই এমন কোন সিমার খুঁজে বের করতে হবে যে ব্যাটিংটাও পারে। এ ক্ষেত্রে সাইফুদ্দিনের নাম আসতে পারে। কিন্তু তিনি এখন ইনজুরির কবলে রয়েছেন। তবে দলের কাঠামোর পরিবর্তন দরকার। আমার মনে হয় বাংলাদেশের বিপক্ষে খেলতে যাওয়া অনেক দলই ভাল উইকেট তৈরী করে। যেখানে স্পিনের খুব একটা সুযোগ থাকে না। আমাদের এমন সিমার খুঁজে বের করতে হবে যে সপ্তম বা আট নম্বরে এসে ব্যাট করতে পারবে।’
তিনি অবশ্য এটিও বলেছেন যে, অতীতে বাংলাদেশ দলে তিন সিমার তত্ব কাজ করেনি।
ডোমিঙ্গো বলেন, ‘ঘটনার পর বোধোদয় একটি দারুন বিষয়। আমরা তিন সিমার তত্ব হয়তো বিবেচনা করব। তবে সেটি আমাদের ব্যাটিং লাইন আপকে হাল্কা করে দিতে পারে। আমরা হয়তো তিন সিমার দিয়ে খেলব। কিন্তু সেটি খুব একটা কার্যকরী হয়নি।’
আজ পরপর দুই ওভারে রাহি যখন ভারতের দুই শীর্ষস্থানীয় ব্যাটসম্যান চেতেশ্বর পুজারা ও বিরাট কোহলিকে ফিরিয়ে দেন। তখন ১১৯ রানে তিন উইকেট হারিয়ে চাপে পড়ে যায় ভারত। এই সময়টাতেই তৃতীয় সিমারের প্রয়োজনীয়তা অনুভূত হয় বাংলাদেশ শিবিরে। সকালের সেশনে প্রচুর বোলিং করার পর রাহির বিশ্রামের প্রয়োজন হয়। অপরদিকে এবাদত সঠিকভাবে কাজ করতে পারছিলেন না। এ ক্ষেত্রে গুরুত্বপুর্ন হয়ে উঠে তৃতীয় সিমার।’
বাংলাদেশ কোচ বলেন, ‘এটি ছিল কঠিন দিন। ভারতই প্রশংসা পাওয়ার দাবীদার। গত দুই দিন ধরে তারা আমাদের উপর একচেটিয়া আধিপত্য বিস্তার করে রেখেছে। তৃতীয় দিনটি অপেক্ষা করছে। এটি বেশ কঠিন পরিস্থিতি। এখন আমাদের এমন ব্যাটসম্যান দরকার যারা ১০০, ১৫০ বা ২০০ রান করতে পারবে। যেমনটি আজ করে দেখিয়েছেন ভারতীয় ব্যাটসম্যান মায়াঙ্ক আগরওয়াল। সুতরাং এটি করতে পারলে দ্বিতীয় ইনিংসে আমাদের ভাল সুযোগ সৃষ্টি হবে।’
বাসস/এমএইচসি/২১১৫/-স্বব