বাংলাদেশ শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার হার উল্লেখ যোগ্যভাবে কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে : শিক্ষামন্ত্রী

394

ঢাকা, ১২ নভেম্বর, ২০১৯ (বাসস) : শিক্ষামন্ত্রী ডা. দীপু মনি বলেছেন, বাংলাদেশ সরকার স্কুল শিক্ষার্থীদের ঝরে পড়ার হার উল্লেখ যোগ্যভাবে কমিয়ে আনতে সক্ষম হয়েছে।
তিনি বলেন, গত ১০ বছরে বাংলাদেশ স্কুল শিক্ষার্থী ঝরে পড়ার হার ৪৭ শতাংশ থেকে ১৮ শতাংশে কমিয়ে এনেছে। স্কুল ঝরে পড়া রোধে বাংলাদেশ সরকার স্কুল ফিডিং এবং বৃত্তির ব্যবস্থা করেছে।
মন্ত্রী আজ প্যারিসে ইউনেস্কোর সদর দপ্তরে জাতিসংঘ শিক্ষা, বিজ্ঞান ও সংস্কৃতি সংস্থার (ইউনেস্কো) ৪০তম জেনারেল কনফারেন্সের অংশ হিসেবে টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্য (এসডিজি)- এডুকেশন ২০৩০-এর সপ্তম অধিবেশনে বক্তৃকালে তিনি এ কথা বলেন।
আজ ঢাকায় প্রাপ্ত এক বার্তায় একথা জানানো হয়েছে।
সেশন সভাপতি ইউনেস্কোর এডিজি স্টেফানিয়া জিয়ানিনি শিক্ষা ক্ষেত্রে বাংলাদেশের ঈর্ষণীয় সাফল্যের বিষয়ে শিক্ষা মন্ত্রীকে কিছু বলার আহ্বান জানালে শিক্ষামন্ত্রী এ কথা বলেন।
শিক্ষা ক্ষেত্রে বাংলাদেশের সাফল্যের কারণে এসডিজির স্টিয়ারিং কমিটি বিশেষভাবে শিক্ষামন্ত্রীকে বক্তব্য রাখতে আহ্বান জানান।
আজ সকালে ইউনেস্কোর ৪০ তম জেনারেল কনফারেন্সের জাতিসংঘের মহাসচিব আন্তোনিও গুতারেস ইউনেস্কোর ৪০ তম জেনারেল কনফারেন্সের উদ্বোধন করেন।
এ সময় ই নাইন এর প্রতিনিধি হিসেবে মাধ্যমিক ও উচ্চশিক্ষা বিভাগের সিনিয়র সচিব সোহরাব হোসাইন উপস্থিত ছিলেন। আরও উপস্থিত ছিলেন ফ্রান্সে নিযুক্ত বাংলাদেশ দূতাবাসের রাস্ট্রদূত কাজী ইমতিয়াজ হোসেন ও বাংলাদেশ ইউনেস্কো জাতীয় কমিশনের ডেপুটি সেক্রেটারি জেনারেল মো. মনজুর হোসেন।
শিক্ষা মন্ত্রী আরও বলেন, ‘এসডিজি-চার’ সবার জন্য মান সম্মত শিক্ষা অর্জনে সরকার খুব গুরুত্ব দিচ্ছে এবং বাংলাদেশ এ ক্ষেত্রে উল্লেখযোগ্য সাফল্যও অর্জন করেছে। বর্তমানে বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষায় উপস্থিতির হার ৯৮ শতাংশ এবং ছেলে শিক্ষার্থীর তুলনায় মেয়ে শিক্ষার্থীর পরিমাণ বেশী।
এসডিজি অর্জনে বাংলাদেশের অঙ্গীকারের কথা উল্লেখ করে ডা. দীপু মনি বলেন, প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা এসডিজি অর্জন সংক্রান্ত কার্যক্রম মনিটরিং করার জন্য একজন সিনিয়র আমলাকে নিয়োগ প্রদান করেছেন।