চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে প্রতিমা বিসর্জন

423

চট্টগ্রাম, ৮ অক্টোবর, ২০১৯ (বাসস) : চট্টগ্রামের পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকতে সাগরের ঢেউয়ের গর্জন ছাপিয়ে সনাতন ধর্মাবলম্বিরা ‘জয় দুর্গা মায়ের জয়’ শ্লোগানে চোখের জলে প্রতিমা বিসর্জন দিয়েছে।
আজ দুর্গাকে বিদায় জানিয়ে বেলা দুইটার পর থেকে শুরু হয় নগরীরর পতেঙ্গা অভিমুখে। ঠেলাগাড়ি, রিকশাভ্যান, ট্রাক, পিকআপে করে নগরের বিভিন্ন স্থান থেকে প্রতিমার মিছিল শুরু হয়।
এরআগে সকাল থেকেই চট্টগ্রাম নগরের মন্ডপে-মন্ডপে বাজে বিদায়ী সুর। ষোড়শ উপাচারে দশমীর বিহিত পূজা, দর্পণ বিসর্জন, শাস্ত্রীয় আচার, দেবীর চরণে অঞ্জলি নিবেদন, দেশ-জাতি, ব্যক্তিগত ও পরিবারের সুখ, শান্তি, মঙ্গল কামনায় ব্যস্ত ছিলেন পূজার্থীরা।
আজ দুপুরের পর থেকে পতেঙ্গা সমুদ্র সৈকত পরিণত হয় জনসমুদ্রে। নানা বয়সী মানুষের মিলনমেলায় পরিণত হয় সৈকত। ভক্তদের কারও চোখে জল ছলছল করছে। কেউ শেষবারের মতো প্রণাম করছেন। কেউ দুর্গামায়ের চরণে, হাতে গুঁজে দিচ্ছেন চিরকুট। কেউ আবার মহাযজ্ঞের ভিড় এড়িয়ে দূর থেকে এক মনে প্রার্থনা করছেন।
চট্টগ্রাম মহানগর পূজা উদযাপন পরিষদের সভাপতি অ্যাডভোকেট চন্দন তালুকদার বলেন, এবার নগরে ২৭০টি মন্ডপে পূজা হয়েছে। এর মধ্যে পতেঙ্গা সৈকতে ১২০-১৩০টি প্রতিমা বিসর্জন দেয়া হয়। এর বাইরে ফিরিঙ্গিবাজারের অভয়মিত্র ঘাটে, কাট্টলী সৈকতে, পাহাড়তলীর বিভিন্ন পুকুর-দীঘিতে, কালুরঘাটে কর্ণফুলী নদীতে প্রতিমা বিসর্জন দেয়া। রাতেও প্রতিমা বিসর্জনের সুবিধার্থে আলোকায়নসহ পর্যাপ্ত ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে বলে জানান তিনি।
পাশাপাশি র‌্যাবের টহল, নিয়মিত পুলিশ, নারী পুলিশ সদস্য, টুরিস্ট পুলিশসহ সাদা পোশাকে পর্যাপ্ত পুলিশ মোতায়েন করা হয়েছে। রয়েছে ফায়ার সার্ভিস ও সিভিল ডিফেন্সের টিমসহ ডুবুরিরাও।