বাসস দেশ-৭ : মশা নিধনে ১০ দিনে ১ লাখ ১,৯২৫টি ভবনে অভিযান চালিয়েছে ডিএনসিসি

138

বাসস দেশ-৭
এডিস-অভিযান
মশা নিধনে ১০ দিনে ১ লাখ ১,৯২৫টি ভবনে অভিযান চালিয়েছে ডিএনসিসি
ঢাকা, ২৪ সেপ্টেম্বর, ২০১৯ (বাসস) : ডেঙ্গু রোগের বাহক এডিস মশা নিধনে গত ১০ দিনে ১ লাখ ১,৯২৫টি বাড়ি ও স্থাপনায় অভিযান চালিয়ে ২৬৬টি বাড়ি ও স্থাপনায় মশার লার্ভা খুঁজে পেয়েছে ঢাকা উত্তর সিটি কর্পোরেশন (ডিএনসিসি)।
গত ১৫ সেপ্টেম্বর থেকে ডিএনসিসি’র ৩৬টি ওয়ার্ডে দ্বিতীয় দফা বিশেষ পরিচ্ছন্নতা ও চিরুনি অভিযান শুরু করা হয়। এ সময় নগরীর ৬০ হাজার ২৪৭টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার বংশবিস্তার উপযোগী স্থান/জমে থাকা পানি পাওয়া যায়। এডিস মশার বংশবিস্তারের উপযোগী এ সকল স্থান ধ্বংস করে লার্ভিসাইড প্রয়োগ করা হয়।
এই অভিযানের অংশ হিসেবে পরিচ্ছন্নতা ও মশক নিধনকর্মীরা আজ ডিএনসিসির ৩৬টি ওয়ার্ডে ১০ হাজার ৮৩৯টি বাড়ি ও স্থাপনা পরিদর্শন করে মোট ১৩টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার লার্ভার উপস্থিতি খুঁজে পায়। এছাড়া ৬ হাজার ১২৭টি বাড়ি ও স্থাপনায় এডিস মশার বংশবিস্তার উপযোগী স্থান বা জমে থাকা পানি পাওয়া যায়।
অভিযানকালে মাটির পাত্র, ফুলের টব, পানির ট্যাংকের নিচ, ড্রাম, চিপ্সের প্যাকেট, পরিত্যক্ত পানির হাউজ, কলসি, পরিত্যক্ত বেসিন, কমোড ও টয়লেটের ফ্লাশ, বালতি, টায়ার, খাবারের প্লাস্টিক-প্যাকেট, লিফটের নিচ, নির্মাণাধীন ভবন, ডোবা, পলিথিন, ডাবের খোসা, নিচু জায়গা, ছোট পাত্র, নারিকেলের মালা, পানির ড্রাম, মাটির হাড়ি, প্লাস্টিকের পাত্র, বাড়ির ছাদ, দুই বাড়ির মধ্যবর্তী স্থান, ওয়াসার মিটার, গ্যারেজ ইত্যাদি জায়গায় এডিস মশার লার্ভা এবং এডিস মশা বংশবিস্তার উপযোগী পরিবেশ পাওয়া যায়।
এডিস মশা নির্মূলে বছরব্যাপী ডিএনসিসির কর্মসূচি অব্যাহত থাকবে বলে ডিএনসিসি সূত্র জানায়।
বাসস/সবি/এমএসএইচ/১৬৪২/এএএ