বরগুনায় জেলা পরিষদ উপ-নির্বাচন ও ইউপি নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করছেন ৬৩ প্রার্থী

161

বরগুনা, ১ জুলাই, ২০১৯ (বাসস) : জেলার আমতলী উপজেলার সদর ইউনিয়ন পরিষদ নির্বাচনে চেয়ারম্যান পদে ৭ জন, সংরক্ষিত ৩টি ওয়ার্ডে ১১ জন, সাধারণ ৯ টি ওয়ার্ডে ৪২ জন প্রার্থী মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছেন। এছাড়া বরগুনা জেলা পরিষদের আমতলী আসনের শূন্য সদস্যপদের উপনির্বাচনে ৩ প্রার্থী নির্বাচনে প্রতিদ্বন্দ্বিতা করবেন।
আমতলীর উপজেলা নির্বাচন অফিসার মো. তারিকুল ইসলাম জানিয়েছেন, রোববার শেষ দিন বিকেলে আমতলী ইউপি চেয়ারম্যান পদে মনোনয়ন পত্র দাখিলকারীরা হলেন, আওয়ামীলীগ মনোনীত উপজেলা স্বেচ্ছাসেবকলীগের সাধারণ সম্পাদক মো. জাহিদুল ইসলাম মিঠু মৃধা, স্বতন্ত্রপ্রার্থী বর্তমান চেয়ারম্যান উপজেলা আওয়ামীলীগ সহসভাপতি মো. মোতাহার উদ্দিন মৃধা, উপজেলা বিএনপির সভাপতি সাবেক ইউপি চেয়ারম্যান মো. জালাল উদ্দিন ফকির, তার স্ত্রী মোসা. নাসিমা বেগম, মো. জাহাঙ্গির হোসেন ও মো. মিজানুর রহমান
বরগুনা জেলা প্রশাসক মো. মোস্তাইন বিল্লাহ কাছে জেলা পরিষদের ৭ নম্বর ওয়ার্ডের সদস্য পদে শূন্য আসনে মনোনয়ন পত্র দাখিল করেছেন চাওড়া ইউনিয়ন আওয়ামীলীগ সভাপতি মো. আহুরুজ্জামান খান আলমাছ, আমতলী উপজেলা পরিষদের সাবেক মহিলা ভাইস চেয়ারম্যান মোসা. মাকসুদা আক্তার জোসনা, ও উপজেলা শ্রমিক লীগ সভাপতি আবুল বাশার নয়ন মৃধা।
তফসিল অনুযায়ী দুটি নির্বাচনেরই মনোনয়ন পত্র জমা দোয়ার শেষ তারিখ ছিলো ৩০ জুন, বাছাই ২ জুলাই, প্রার্থীতা প্রত্যাহারের শেষ তারিখ ৯ জুলাই, ভোট গ্রহণ ২৫ জুলাই। ৭নং ওয়ার্ডের নির্বাচিত সদস্য ছিলেন আহুরজ্জামান খান আলমাসের বড় ভাই মরহুম মনিরুল ইসলাম খান দুলাল। তিনি গত ২৫ ডিসেম্বর মারা যান। যে কারণে স্থানীয় সরকার মন্ত্রণ ালয় পদটি শুন্য ঘোষণা করে।
আমতলী উপজেলা নির্বাচন অফিস সূত্রে জানা গেছে, আমতলী পৌরসভার সাথে সীমানা সংক্রান্ত জটিলতার কারণে হাইকোর্টের মামলা থাকায় গত তিনবছর ধরে নির্বাচন বন্ধ ছিল। ২০১১ সালের ৩ এপ্রিল আমতলী ইউনিয়ন পরিষদের সর্বশেষ নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়। ২০১৬ সালে পরবর্তী নির্বাচন হওয়ার কথা ছিলো।
শান্তিপূর্ণভাবে এ নির্বাচন দুটো সম্পন্ন করার জন্য সকল ধরণের প্রস্ততি গ্রহণ করা হয়েছে বলে রিটার্নিং কর্মকর্তারা জানিয়েছেন।