বাসস দেশ-২৬ : রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টায় যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারাকে আরও সম্পৃক্ত করার আহ্বান

556

বাসস দেশ-২৬
রোহিঙ্গা সঙ্কট-সেমিনার
রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টায় যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারাকে আরও সম্পৃক্ত করার আহ্বান
ঢাকা, ৩০ জুন, ২০১৯ (বাসস) : রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে আন্তর্জাতিক প্রচেষ্টায় যুক্তরাষ্ট্রের মূলধারাকে আরও সম্পৃক্ত করার আহ্বান জানালেন প্রবাসী বাঙ্গালী কমিউনিটির নেতৃবৃন্দ।
আজ ঢাকায় এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে জানানো হয়, বিশ্ব শরণার্থী দিবস : রোহিঙ্গাসহ বিশ্বের দীর্ঘস্থায়ী শরণার্থীদের সমসাময়িক হুমকিসমূহ নিয়ে এক সেমিনারে বক্তারা এই আহ্বান জানান।
সেমিনারে যুক্তরাষ্ট্রের ফিলাডেলফিয়া শহরে স্থানীয় কংগ্রেসম্যান, জনপ্রতিনিধি, শিল্পী, সাহিত্যিক, লেখক, মনোবিজ্ঞানী, মানবাধিকারকর্মী, সমাজকর্মী, অভিনেত্রী, মডেল, মিডিয়া ব্যক্তিত্ব ও সুশীল সমাজের প্রতিনিধিবর্গসহ ফিলাডেলফিয়ায় বসবাসরত বিপুল সংখ্যক প্রবাসী বাংলাদেশের নাগরিকরা অংশগ্রহণ করে।
ফিলাডেলফিয়ারা প্রবাসী তরুণ ব্যবসায়ী, রাজনীতিবিদ ও মানবাধিকার কর্মী মো. লুৎফর রহমান হিমু’র প্রতিষ্ঠান ব্রিটস্ গ্লোবাল ফাউন্ডেশন এই সেমিনারের আয়োজন করে।
এতে গেস্ট অব অনার হিসেবে উপস্থিত ছিলেন জাতিসংঘে নিযুক্ত বাংলাদেশের স্থায়ী প্রতিনিধি রাষ্ট্রদূত মাসুদ বিন মোমেন। বিশেষ অতিথিদের মধ্যে ছিলেন নিউ জার্সি অঙ্গরাজ্যের মন্ত্রী নিলা টেইলর, জাতিসংঘের শরণার্থী বিষয়ক হাইকমিশন এর সিনিয়র পাবলিক ইনফরমেশন অফিসার মিজ ডানা সিলেইম্যান, বিশিষ্ট মনোবিজ্ঞানী ড. ওচিমা পিটম্যানা, মানবাধিকার প্রবক্তা জোসেফ হ্যারিস, ফিলাডেলফিয়ার ৬০নং ওয়ার্ডের কমিটিম্যান গ্রেক থম্পসন, ফ্যাশান ডিজাইনার ও আর্টস্ অর্গানাইজার ভ্যানি তাওসাইন্যান্ট , সঙ্গীত শিল্পী, মিজ্ টিন ইন্টারন্যাশনাল বিউটি ও মিজ্ ভারতসহ বাংলাদেশের আরটিভির সিইও আশিক রহমান।
সভায় বক্তারা বলেন, রোহিঙ্গাদের মানবিক আশ্রয় প্রদানের ক্ষেত্রে প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা উদারতা প্রদর্শন করেছেন এখন বিশ্ব সম্প্রদায়ের উদার ও কার্যকরভাবে এই সমস্যার স্থায়ী সমাধান করা প্রয়োজন। এক্ষেত্রে তিনি মিয়ানমার কর্তৃপক্ষকে এর দায়বদ্ধতার মুখোমুখি করা, মূল কারণ খুঁজে বের করে এর সমাধান করা, রাখাইন প্রদেশে প্রত্যাবাসনের উপযোগী পরিবেশ ও মিয়ানমারের অভ্যন্তরে সেফ জোন গড়ে তোলা ইত্যাদি ক্ষেত্রে আন্তর্জাতিক সম্প্রদায়কে ভূমিকা রাখার আহ্বান জানান।
রোহিঙ্গা সঙ্কট সমাধানে যুক্তরাষ্ট্র সরকারের ইতিবাচক পদক্ষেপের ভূয়সী প্রশংসা করেন রাষ্ট্রদূত মাসুদ। এক্ষেত্রে জাতিসংঘে ভূমিকা রাখা, রোহিঙ্গাদের জন্য একক বৃহত্তম মানবিক সহায়তা প্রদান, মিয়ানমারের উচ্চপদস্থ ৫জন মিলিটারি কর্মকর্তাকে যুক্তরাষ্ট্রে প্রবেশে নিষেধাজ্ঞা, সহিংসতাকে ‘জাতিগত নির্মূল’ হিসেবে স্বীকৃতি প্রদান ও হাউজ অব রিপ্রেজেনটেটিভ-এ রেজুলেশন গ্রহণসহ নানা পদক্ষেপের কথা তুলে ধরেন।
বাসস/সবি/এমএআর/২২৩৫/-এইচএন