মাগুরায় অর্থনৈতিক জোন হলে ৫০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে : আবুল কালাম আজাদ

328

মাগুরা, ২২ জুন, ২০১৯ (বাসস) : মাগুরায় অর্থনৈতিক জোন হলে ৫০ হাজার মানুষের কর্মসংস্থান হবে বলে জানিয়েছেন প্রধানমন্ত্রীর কার্যালয়ের টেকসই উন্নয়ন লক্ষ্যমাত্রা (এসডিজি) বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক আবুল কালাম আজাদ।
আজ শনিবার বিকেলে মাগুরা শেখ কামাল ইনডোর স্টেডিয়ামে জেলা প্রশাসন আয়োজিত ‘এসডিজি বাস্তবায়ন ও মাদক, সন্ত্রাস জঙ্গিবাদ নির্মূলে স্থানীয় সরকার প্রতিষ্ঠানের ভুমিকা’ শীর্ষক মতবিনিময় সভায় প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা জানান।
এসডিজি বিষয়ক মূখ্য সমন্বয়ক বলেন, ইকোনোমিক জোনে কৃষিজাত পণ্য প্রক্রিয়াজাত করে বিদেশে রপ্তানী করা সম্ভব হবে। এখানে আসা শিল্প মালিকরা উন্নতমানের বীজ ও নতুন নতুন কৃষি প্রযুক্তি আনবে। এর ফলে এ অঞ্চলে কৃষি পণ্যের উৎপাদন বাড়াতে সহায়ক হবে।
এসডিজি বা টেকসই উন্নয়ন অর্থনীতি সম্পর্কে তিনি আরও বলেন, এসডিজি বর্তমান প্রয়োজন মেটানোর পাশাপাশি আগামী দিনেরও প্রয়োজন মেটাবে। এ কারণে শিক্ষা, স্বাস্থ্যসহ এসজিডির অন্যান্য ধারাগুলো বাস্তবায়নে আন্তরিকভাবে সকলকে কাজ করতে হবে।
অনুষ্ঠানে জেলা প্রশাসক মোহাম্মদ আলী আকবরের সভাপতিত্বে অনুষ্ঠানে মাগুরা-১ আসনের সংসদ সদস্য সাইফুজ্জামান শিখর, মাগুরা-২ আসনের সংসদ সদস্য ড. শ্রী বীরেন সিকদার, খুলনার বিভাগীয় কমিশনার লোকমান হোসেন মিয়া, পুলিশ সুপার খান মুহাম্মদ রেজোয়ান, মাগুরা জেলা পরিষদ চেয়ারম্যান পংকজ কুন্ডু, পৌর মেয়র খুরশীদ হায়দার টুটুল, সদর উপজেলা চেয়ারম্যান আবু নাসির বাবলু প্রমুখ বক্তব্য দেন ।
এরআগে তিনি মাগুরার শ্রীপুর উপজেলার নাকোল ইউনিয়নের মাঝাইল শিয়ালঝাপা এলাকায় প্রস্তাবিত অর্থনৈতিক জোন এলাকা পরিদর্শন করেন।
এ সময় তিনি আরও বলেন, অর্থনৈতিক জোন বাস্তবায়িত হলে দক্ষ লোকবল তৈরি হবে। বিশেষ করে যাদের জমি এই অর্থনৈতিক জোন এলাকার মধ্যে পড়বে তাদেরকে বিভিন্ন কাজের উপর প্রশিক্ষণ দিয়ে যোগ্য করে গড়ে তুলতে হবে। তা না হলে বাইরের লোক এসে এখানে কাজ করলে এলাকার মানুষের কোন উপকার হবে না। এই এলাকা অর্থনৈতিক জোনের জন্য উপযুক্ত এলাকা। পাঁচটি জেলার সংযোগস্থল। এখানে অর্থনৈতিক জোন গড়ে উঠলে পাঁচটি জেলাসহ সারাদেশের মানুষ উপকৃত হবে।