বাসস প্রধানমন্ত্রী-২ (দ্বিতীয় ও শেষ কিস্তি) : মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে গড়িমসি করছে : প্রধানমন্ত্রী

388

বাসস প্রধানমন্ত্রী-২ (দ্বিতীয় ও শেষ কিস্তি)
শেখ হাসিনা-সংবাদ সম্মেলন
মিয়ানমার রোহিঙ্গাদের ফেরত নিতে গড়িমসি করছে : প্রধানমন্ত্রী

সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে শেখ হাসিনা বলেন, সরকার ডেল্টা প্ল্যান (শত বছরের বদ্বীপ পরিকল্পনা) নিয়েছে। এই পরিকল্পনা বাস্তবায়ন হলে কারও কাছে পানির জন্য মুখাপেক্ষী হয়ে থাকতে হবে না। সেজন্য তিনি তিস্তার পানি বণ্টন চুক্তি নিয়েও খুব বেশি চিন্তা করতে বারণ করেন।
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা আমাদের ডেল্টা প্ল্যান নিয়েছি। নদীগুলো ড্রেজিং করে দিচ্ছি। কারও কাছে পানির জন্য মুখাপেক্ষী হয়ে থাকতে হবে না। কারণ আমাদের বাংলাদেশ একটা ব-দ্বীপ।’
তিনি বলেন, ‘হিমালয় থেকে যে নদীগুলো আসছে, সেগুলোকে বাংলাদেশের উপর দিয়ে যেতেই হবে। এখন পানি আমরা কতোখানি ধরে রাখতে পারবো, সেই ব্যবস্থা যদি করি, তাহলে পানি আমাদের চাইতে হবে না। কাজেই এটা নিয়ে বেশি চিন্তা করার দরকার নেই।’
‘বিমানের পাইলটের পাসপোর্ট বিহীনভাবে কাতারে গমন সম্পর্কিত এক প্রশ্নের উত্তরে তিনি বলেন, ‘এটাতো একটা লক্ষণীয় বিষয়। কেননা যখনই বিমানে উঠি তখনই একটা ঘটনা ঘটে বা নিউজ হয়। এটা কেন হয় আমি জানি না।
তিনি এ বিষয়ে ইমিগ্রেশন কর্মকর্তাদের নজরদারি বাড়ানোর আহবান জানিয়ে জড়িতদের এবং সে সময় যারা ইমিগ্রেশনের ডিউটিতে ছিল তাদের বিরুদ্ধে ব্যবস্থা গ্রহণের নির্দেশ দেন।
তাঁর সরকার ইমিগ্রেশন ব্যবস্থায় কড়াকড়ি আরোপ করেছে উল্লেখ করে তিনি বলেন, যারা ভিআপি বা ভিভিআইপি যেই হোক না কেন এরপর আর কাউকে ছাড়া হবে না। প্রত্যেকের পাসপোর্টে সিল মারা হয়েছে কিনা, তাদের চেকিং ভালভাবে হচ্ছে কি না, ভিআইভি বা ভিভিআইপি প্রত্যেকেরই লাগেজ চেক করার ব্যবস্থা করতে হবে। তিনি ডিপারচার লাউঞ্জে আরো কড়াকড়ি আরোপ করার ওপর গুরুত্বারোপ করেন।
তিনি বলেন, এতদিন পরিশ্রম করে বিমান বহরে নতুন বিমান সংযোজন করে বিমানের অবস্থা যখন একটা পর্যায়ে নিয়ে আসা হয়েছে এবং আরো কয়েকটি নতুন রুট চালু করার চেষ্টা হচ্ছে, তখনই এ ধরনের ঘটনা ঘটছে।
মামলার দ- নিয়ে লন্ডনে নির্বাসনে থাকা বিএনপির ভারপ্রাপ্ত চেয়ারম্যান তারেক রহমানের বিভিন্ন অপকর্মের খতিয়ান তুলে ধরে তার নাম মুখে নিতেও ঘৃণা হয় বলে সাংবাদিকদের এক প্রশ্নের উত্তরে বলেন প্রধানমন্ত্রী।
শেখ হাসিনা বলেন, ‘তাকে দেশে ফিরিয়ে এনে দ- কার্যকরের ব্যবস্থা হচ্ছে। আজ হোক কাল হোত তাকে শাস্তি পেতেই হবে।’
তিনি বলেন, ‘নাম নিতেই তো ঘৃণা লাগে। তাকে নিয়ে দেখি অনেকের দরদ উতলে ওঠে। ২১ আগস্ট গ্রেনেড হামলার কথা কীভাবে ভুলে যান? হাজার হাজার নেতাকর্মীকে হত্যা করেছে, এতিমের টাকা আত্মসাৎকারী, দশ ট্রাক অস্ত্র চোরাচালানকারী এদের জন্য মায়াকান্না করলে কিভাবে দেশে বিচার হবে।’
প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘আমরা ব্রিটিশ সরকারের সঙ্গে কথা বলছি। এত টাকা তৈরি করেছে তারা সেখানে খুব আরাম-আয়েশে আছে। আর আমি যখন যাই তখন প্রত্যেকবার এক একটা সমস্যা তৈরি করে।’
মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে যুদ্ধ, দ্বন্দ্ব নিয়ে প্রশ্ন করলে তিনি বলেন, ‘কে ভালো মুসলমান কে ভালো মুসলমান না সেটা নিয়ে নিজেদের মধ্যে মারামারি করা বন্ধ করতে হবে। কে ভালো, মন্দ সেটার বিচার আল্লাহতায়ালা শেষ বিচারে করবেন।’
শেখ হাসিনা বলেন, ‘মুসলিম দেশগুলোর মধ্যে রক্তপাত হচ্ছে। কিন্তু লাভবান হচ্ছে অস্ত্র যারা তৈরি ও বিক্রি করছে তাদের। ওআইসিকে এটা বন্ধ করতে হবে। আমি সেখানে এই কথা বলেছি। এটা আমি বলে যাবো। জানি এতে সমস্যাও হতে পারে। তারপরও যা সত্য তাই বলবো। আল্লাহ ছাড়া কাউকে ভয় করি না। আমার বাবাও করেননি।’
বাংলাদেশে জঙ্গি তৎপরতা নিয়ে তিনি বলেন, ‘এক সময় শুনতাম কওমি মাদ্রাসার ছাত্ররা সন্ত্রাসী কাজ করে। এখন কী দেখি। বাপ মা সব দিয়ে দিয়েছে, উচ্চ শিক্ষিতরা এ কাজ করছে।’
ধর্মীয় বক্তারা নারীর বিরুদ্ধে কথা বলেন- এ বিষয়ে এক প্রশ্নের জবাবে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘ইসলামে নারীর মর্যাদা দেয়া হয়েছে। সেই ধর্মের লোকেরা কীভাবে নারীদের নিয়ে এসব কথা বলেন। আমি মনে করি নারীরা যত বেশি শিক্ষিত হবে, প্রতিটি জায়গায় নিজেরা অবস্থান তৈরি করতে পারবে সেটাই জবাব। এর থেকে আর বেশি কী!’
শেখ হাসিনা সন্ত্রাস এবং জঙ্গিবাদ সম্পর্কে দেশবাসীকে সচেতন থেকে উন্নয়নের গতি যেন কোনভাবেই ব্যাহত না হয় সেদিকে লক্ষ্য রাখার আহবান জানান।
সম্প্রতি জার্মানভিত্তিক সংবাদমাধ্যম ডয়চে ভেলেতে দেয়া সাক্ষাৎকারে একটি ইংরেজি জাতীয় দৈনিকে সম্পাদকের ‘যা চাচ্ছি তা লিখতে পারছি না’ এমন মন্তব্যের কঠোর সমালোচনা করেন প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা।
তার নাম উল্লেখ না করে প্রধানমন্ত্রী বলেন, ‘গণতান্ত্রিক প্রক্রিয়া অব্যাহত থাকলে তাদের ভালো লাগে না। তারা অন্য কোনো প্রক্রিয়া চান। অন্য কোনো প্রক্রিয়া থাকলে তারা সুবিধা পান। তিনি এখন ফরমায়েশি লেখা পান না তাই লিখতে পারেন না।’
বিশেষ কোনো সাংবাদিকের লেখার ক্ষেত্রে সরকারের কোনো নির্দেশনা থাকার প্রশ্নটি অবান্তর-এমন মনোভাব ব্যক্ত করে তিনি বলেন, ‘এমন নির্দেশনা থাকলে তারা লিখে কীভাবে, কথা বলে কীভাবে!
তিনি বলেন, ‘আমি বুঝছি কার কথা বলছেন। টিভিতে সেই সম্পাদক কয়েক বছর আগে নিজেই স্বীকার করেছিলেন ডিজিএফআইয়ের দেয়া খবর তিনি যাচাই-বাছাই ছাড়াই প্রকাশ করেছিলেন। এখন হয়ত ডিজিএফআই কিছু দিচ্ছে না তাই তিনি লিখতে পারছেন না।’
শেখ হাসিনা বলেন,‘ ওনার যা খুশি লিখুক। এদের কখনো কোনো সহযোগিতা পেয়েছি? পাইনি। কে কী লিখলো সেটা নিয়ে আমি চিন্তা করি না।’
বাসস/এএসজি-এফএন/২২৩০/এবিএইচ