বাসস ক্রীড়া-৭ : অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ দলে ফিরলেন স্মিথ-ওয়ার্নার

101

বাসস ক্রীড়া-৭
অস্ট্রেলিয়া-দল
অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ দলে ফিরলেন স্মিথ-ওয়ার্নার
সিডনি, ১৫ এপ্রিল, ২০১৯ (বাসস/এএফপি) : বল টেম্পারিং-এর কারণে গেল এক বছর আন্তর্জাতিক ক্রিকেটে নিষিদ্ধ থাকা সাবেক অধিনায়ক স্টিভেন স্মিথ ও সহ-অধিনায়ক ডেভিড ওয়ার্নারকে রেখেই আসন্ন ওয়ানডে বিশ্বকাপের জন্য দল ঘোষণা করলো ক্রিকেট অস্ট্রেলিয়া (সিএ)। দলে জায়গা হয়নি পেসার জশ হ্যাজেলউড ও ব্যাটসম্যান পিটার হ্যান্ডসকম্বের। গত মাসে নিষেধাজ্ঞা শেষ হবার পর এই প্রথম জাতীয় দলে সুযোগ পেলেন তারা। ২০১৮ সালের মার্চে কেপটাউনে দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে টেস্টে শিরিষ কাগজ দিয়ে বল টেম্পাারিং করেন অস্ট্রেলিয়ার ব্যাটসম্যান ক্যামেরন বেনক্রফট। তাকে বল টেম্পারিং-এ সহায়তা করার অভিযোগে নিষিদ্ধ হয়েছিলেন স্মিথ ও ওয়ার্নার।
গত মাসের ২৮ তারিখ নিষেধাজ্ঞা শেষে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজের শেষ দু’টি ম্যাচের জন্য খেলার সুযোগ ছিলো স্মিথ-ওয়ার্নারের। কিন্তু ঐ সিরিজে তাদের না ফিরিয়ে চলমান ইন্ডিয়ান প্রিমিয়ার লিগে (আইপিএলে) খেলার জন্য পরামর্শ দেন নির্বাচকরা। ইতোমধ্যে আইপিএল’এ নিজের সামর্থ্যের প্রমানও দিয়েছেন ওয়ার্নার। সানরাইজার্স হায়দারাবাদের হয়ে ৭ ম্যাচে ১টি সেঞ্চুরি ও ৪টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ৮০ গড়ে ৪০০ রান করেছেন ওয়ার্নার। আইপিএলে এখন পর্যন্ত সর্বোচ্চ রান সংগ্রাহক তিনিই। তবে এখনো নিজেকে পুরোপুরিভাবে মেলে ধরতে পারেনি স্মিথ। রাজস্থান রয়্যালসের জার্সি গায়ে ৭ ম্যাচে ১টি হাফ-সেঞ্চুরিতে ১৮৬ রান করেছেন তিনি।
স্মিথ-ওয়ার্নার নিষেধাজ্ঞায় পড়ার পর পথ হারায় অস্ট্রেলিয়া। ক্রিকেটের তিন ফরম্যাটেই পারফরমেন্সে চিত্র নিচের দিকে ধাবিত হতে থাকে তাদের। তবে শেষ দু’টি সিরিজে অসাধারণ পারফরমেন্স করেছে অস্ট্রেলিয়া। ভারতের মাটিতে পাঁচ ম্যাচের সিরিজের প্রথম দু’টিতে হারে তারা। তবে শেষ তিন ম্যাচ জিতে ঠিকই সিরিজ জিতে নেয় অসিরা। এরপর সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাকিস্তানকে পাঁচ ম্যাচের সিরিজে হোয়াইটওয়াশ করে অস্ট্রেলিয়া।
ফলে ভারত এবং পাকিস্তানের বিপক্ষে এক নাগারে আটটি ওয়ানডে ম্যাচ জেতায় বিশ্বকাপ শিরোপা অক্ষুন্ন রাখতে দল নির্বাচনে অম্ল মধুর এক সমস্যায় পড়ে যান কোচ জাস্টিন ল্যাঙ্গার। টপ অর্ডারে সব ব্যাটসম্যানই আছেন রানের মধ্যে এবং দল থেকে বাড় পড়া হ্যান্ডসকম্ব এ বছর ১৩ ম্যাচে গড় রান করেন ৪৩। তিনি বাদ পড়ায় একজন উইকেটরক্ষক এ্যালেক্স ক্যারিকে রেখে দল সাজিয়েছেন নির্বাচকরা।
প্রধান নির্বাচক ট্রেভর হন্স বলেন, ‘ভারতে এবং সংযুক্ত আরব আমিরাতে পাকিস্তানের বিপক্ষে সিরিজসহ গত ছয় মাসে দল যেভাবে সংগঠিত হয়েছে তাতে আমরা অত্যন্ত খুশি। স্টিভ স্মিথ ও ডেভিড ওয়ার্নার দলে ফিরেছেন। উভয়েই বিশ্বমানের খেলোয়াড় এবং আইপিএল’এ তার ফর্ম দেখাটা আনন্দের।’
অস্ট্রেলিয়া দলের সাম্প্রতি দুর্দান্ত ফর্মের পিছনে রয়েছে অধিনায়ক এ্যারন ফিঞ্চ ও উসমান খাজার ওপেনিং জুটি। তবে আগামী মাসে ইংল্যান্ডের মাটিতে শুরু হওয়া বিশ্বকাপে ওয়ার্নারের সঙ্গে ওপেনিং জুটি হিসেবে কে খেলতে নামবেন সে বিষয়ে সিদ্ধান্ত নিতে হবে ল্যাঙ্গারকে। কেননা প্রথাগতভাবেই ইনিংস ওপেন করতে নামেন ওয়ার্নার।
মিডল অর্ডারে দায়িত্ব পালন করবেন শন মার্শ, স্মিথ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল এবং অলাউন্ডার মার্কাস স্টয়নিস।
নির্বাচকরা দুই স্পিনার এ্যাডাম জাম্পা ও নাথান লিঁয়নসহ পাঁচ পেসার নিয়ে দল গঠন করেছেন।
রেকর্ড ষষ্ঠ বিশ্বকাপে শিরোপা জয়ে লক্ষ্য নির্ধারণ করা অস্ট্রেলিয়া নির্বাচকদের ব্যাটসম্যানদের ন্যায় বোলিং নিয়েও বেশ সমস্যায় পড়তে হবে।
পেস বোলিং আক্রমণের নেতৃত্ব দেবেন প্যাট কামিন্স। তার সঙ্গে থাকেবন ২০১৫ বিশ্বকাপের সেরা খেলোয়াড় নির্বাচিত হওয়া মিচেল স্টার্ক।
দলে জায়গা পাননি পিঠের ইনজুরির কারণে জানুয়ারি মাস থেকে খেলার বাইরে থাকা হ্যাজেলউড। এ সম্পর্কে হন্স বলেন তাদের লক্ষ্য ছিল আগামী আগস্টে ইংল্যান্ডের মাটিতে অনুষ্ঠিতব্য এ্যাশেজ সিরিজের জন্য হ্যাজেলউডকে প্রস্তুত করা। নাথান কালটার-নাইল এবং জেসন বেহরেনডর্ফের সঙ্গে দলে জায়গা পেয়েছেন গত মাসে কাঁধের ইনজুরিতে পড়া ঝাই রিচার্ডসনও।
বিশ্বকাপ দলে জায়গা না পেলেও আগামী জুন মাসে ইংল্যান্ডে শুরু হওযা এ’ দলের সফরে অস্ট্রেলিয়া দলে জায়গা পেয়েছেন হ্যাজেলউড এবং হ্যান্ডসকম্ব। এ্যাশেজ সিরিজের দল গঠনের জন্য এ’ সফর গুরুত্বপূর্ণ ।
হন্স বলেন, ‘মেধার গভীরতা এবং এক পজিশনে জায়গা পেতে প্রতিদ্বন্দিতার কারণে ১৫ সদস্যের দল নির্বাচন করতে আমাদের বেশ বেগ পেতে হয়েছে।’
অস্ট্রেলিয়া বিশ্বকাপ দল : এ্যারন ফিঞ্চ (অধিনায়ক), উসমান কাজা, ডেভিড ওয়ার্নার, স্টিভ স্মিথ, শন মার্শ, গ্লেন ম্যাক্সওয়েল, মার্কাস স্টয়নিস, এ্যালেক্স ক্যারি, প্যাট কামিন্স, মিচেল স্টার্ক, ঝাই রিচার্ডসন, নাথান কালটার-নাইল, জেসন বেহরেনডর্ফ, নাথান লিঁয়, এডাম জাম্পা।
অস্ট্রেলিয়া এ’ দল: ট্রাভিস হেড (অধিনায়ক), ম্যাথু ওয়েড, উইল পুকোভস্কি, পিটার হ্যান্ডসকম্ব, এ্যাস্টন টার্নার, মিচেল মার্শ, ডি আর্চি শর্ট, কুর্তিস প্যাটারসন, এ্যাস্টন আগার, মাইকেল নাসের, জেমস প্যাটিনসন, জশ হ্যাজেলউড, কেন রিচার্ডসন, সিন এ্যাবট।
বাসস/এএফপি/স্বব/১৮১৫/মোজা/নীহা